মুর্শিদাবাদের ৫টি উল্লেখযোগ্য ঐতিহাসিক পর্যটন কেন্দ্র (Murshidabad Tour And Travel)

0

১) হাজারদুয়ারি প্যালেস Murshidabad Tour And Travel

 

মুর্শিদাবাদ ঘোরার কথা শুনলে সবার প্রথমে মাথায় আসে হাজারদুয়ারী’র কথা।

ভাগীরথী নদীর তীরে প্রায় ৪১ একর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত এই বিশাল প্রাসাদ’টি মুর্শিদাবাদের এমনকি সমগ্র বাংলার একটি অনবদ্য সৌন্দর্য। প্রাসাদ’টিতে সব মিলিয়ে মোট ১০০০টি দরজা সুসজ্জিতভাবে থাকার কারনে এর নাম ‘হাজারদুয়ারী’। তবে বাস্তবে এর মোট আসল দরজা’র সংখ্যা ৯০০টি, বাকি ১০০টি শত্রুপক্ষকে বিভ্রান্ত করবার জন্য নির্মিত।   

 

প্রাসাদ’টি ভাগারথী নদীর পূর্ব তীরে অবস্থিত ‘কিলা নিজামত’ নামক একটি ঘের এর মধ্যে অবস্থিত। প্রাসাদ’টির পরিধিতে একইসাথে অবস্থিত ‘নিজামত ইমামবারা’, ‘ওয়াসিফ মঞ্জিল’, ‘বাচ্চাওয়ালি তোপ’ এবং ‘মুর্শিদাবাদ ক্লক টাওয়ার’।

 

তৎকালীন সময়ে প্রাসাদটি একটি রাজকীয় প্রাসাদ ছিল। বর্তমানে আসল প্রাসাদ’টি ধ্বংসাবশেষে পরিণত হয়ে ভাগীরথী’র জলে তলিয়ে যাওয়াই একই অনুকরণে নতুন করে প্রাসাদ’টি তৈরি করে একটি যাদুঘরে রূপান্তরিত করা হয়েছে। সিরাজ-উদ-দৌলা এর মূল্যবান তলোয়ার থেকে শুরু করে বাংলার নবাব, অভিজাত শ্রেণী ও ব্রিটিশ শাসক’দের ব্যাবহার্জ ও শৌখিন দ্রব্যাদি এখানে রাখা আছে।

 

হাজারদুয়ারী প্যালেস, মুর্শিদাবাদ

২) কাঠগোলা বাগান Murshidabad Tour And Travel

 

মুর্শিদাবাদ থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে অবস্থিত, এটি মুলত মুর্শিদাবাদের নাম করা ব্যবসায়ী জগৎ শেঠ এর বাগানবাড়ি। এখানেই একইসাথে চলতো জগত শেঠ এর কাঠের ব্যাবসা, তাই এর নাম ‘কাঠগোলা বাগান’। তৎকালীন বাংলার অভিজাতবর্গ ও বিদেশী’দের সবসময় আনাগোণা চলতো এখানে।

 

এই বিশাল প্রাসাদ’টিতে এমন কিছু বিস্ময়কর নিদর্শন দেখা যাবে যা যেকোনও সাধারণ মানুষের মনে বিস্ময়ের উদ্রেগ করবে।

 

প্রাসাদ, অবিরাম উদ্যান, পুকুর, আদিনাথকে উৎসর্গ করা একটি মন্দিরে এবং মাইকেলহানজেলোর একটি মূর্তি ছাড়াও এখানে আছে জগত শেঠ এর বাড়ি থেকে বাগানবাড়ি পর্যন্ত একটি বিশাল সুরঙ্গপথের দ্বার, যা বর্তমানে ভাগিরথীর জলে ভরে সম্পূর্ণ ব্যাবহারের অযোগ্য।

কাঠগোলা বাগান, মুর্শিদাবাদ

৩) মতিঝিল Murshidabad Tour And Travel

 

‘মতিঝিল’ আসলে ছিলো একটি প্রাসাদ এবং ঘোড়াকৃতি হ্রদের মিলিত সৌন্দর্য। বিখ্যাত ঘষেটি  বেগম এর স্বামী নওয়াজেশ মহম্মদ এই সুন্দর ঘোড়াকৃতি হ্রদ’টি এখানে খনন করেছিলেন। প্রাসাদ’টি বিনষ্ট হয়ে গেলেও হ্রদ’টি এখনও অবস্থিত রয়েছে।

 

মতিঝিল পরে লর্ড ক্লাইভ, ওয়ারেন হেস্টিংস এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ব্রিটিশ লর্ডদের একটি বাসভবনের আবাসস্থল হিসেবে কাজ করে। ব্রিটিশ কর্মকর্তাদের সাথে সম্বন্ধের কারণে এটি জনপ্রিয়ভাবে ‘কোম্পানি বাঘ’ নামে পরিচিত ছিল।

মতিঝিল, মুর্শিদাবাদ

৪) ওয়াসিফ মঞ্জিল Murshidabad Tour And Travel

 

এই প্রাসাদটি মুর্শিদাবাদের নবাব নওয়াব ওয়াসিফ আলী মির্জা খান কর্তৃক নির্মিত হয়েছিল। হাজরদুয়ারি’র দক্ষিণে অবস্থিত এই প্রাসাদ’টি ‘নতুন প্রাসাদ’ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে কারণ এটি অনেক পরে নির্মিত হয়েছিল। মূল প্রাসাদ’টি ১৮৬৭ সালের ভুমিকম্পের প্রভাবের পর আসতে আসতে ভেঙে যেতে শুরু করে।

 

প্রাসাদ’টির পরিবেশ অসম্ভব সুন্দর, এমনকি এখানে একটি কৃত্রিম পাহাড় ও অবস্থিত ছিলো। প্রাসাদটি পুনরুদ্ধার করা হলেও পাহাড়টি পুনর্গঠন করা হয়নি।

ওয়াসিফ মঞ্জিল, মুর্শিদাবাদ

৫) কাতরা মসজিদ Murshidabad Tour And Travel

 

মুর্শিদাবাদের আরেকটি আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র এবং ভালোভাবে রক্ষণাবেক্ষণের মধ্যে একটি হলো ‘কাতরা মসজিদ’। এই মসজিদ’টি ১৭২৪ সালে মুর্শিদকুলী খানের একজন অনুগামী মুরাদ ফারাশ খান দ্বারা নির্মিত হয়েছিল।

মসজিদটি কুলী খানের ইচ্ছা অনুযায়ী তাঁকে মসজিদে প্রবেশ পূর্বের দিকের সিঁড়ির নীচে সমাহিত করা হয়।

কাতরা মসজিদ, মুর্শিদাবাদ

এছাড়া সিরাজ-উদ-দৌলার সমাধি, রানীভবানীর তৈরি চারমন্দির, জগদ্বন্ধু ধাম, কিরীটেশ্বরী মন্দির, জাহানকোষা কামান, জগৎ শেঠের বাড়ি, আজিমুন্নেসার সমাধি ইত্যাদি আরও বহু ঐতিহাসিক দর্শনীয় স্থান আছে মুর্শিদাবাদে।

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
মন্তব্য
Loading...