সময়ের সাথে হাত মিলিয়ে

Advertisement

পর্যটন শিল্প চাঙ্গা করতে তৎপর রাজ্য, খুলে দেওয়া হচ্ছে পর্যটন লজ

0

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্কঃ জানুয়ারি মাসে ভারতে করোনা সংক্রমণ শুরু হবার পর চলতি বছরের ২৩ মার্চ গোটা দেশে লকডাউন ঘোষণা করা হয় । এই লকডাউনে সবচেয়ে বেশি মার খেয়েছে পর্যটন শিল্প । এবার পর্যটন শিল্প চাঙ্গা করতে তৎপর হল রাজ্য । রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হল  ট্যুরিস্ট লজ খুলে দেওয়া হবে ।

রাজ্যের আয়ের একটি বড় উৎস পর্যটন শিল্প । কিমি. বেশি প্রায় এক কোটি মানুষ এই শিল্পের সাথে যুক্ত আছেন । দীর্ঘ তিন মাসের বেশি লকডাউন চলায় কার্যত শোচনীয় অবস্থা এই মানুষগুলির । আয়হীন এই মানুষগুলির কথা চিন্তা করেই মুলত রাজ্য সরকার এই পর্যটন লজ  খোলার সিদ্ধান্ত নিল ।

রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে জানা গেছে পর্যটন শিল্পকে ফের চাঙ্গা করে তোলার জন্য  ধিরে ধিরে ট্যুরিস্ট লজগুলির দরজা খুলে দেওয়া হচ্ছে পর্যটকদের জন্য। প্রাথমিকভাবে খোলা হচ্ছে মাত্র ১৩টি। সেই তালিকায় রয়েছে ডায়মন্ডহারবার, ঝাড়গ্রাম, ব্যারাকপুর, বকখালি, দিঘা, মেদিনীপুর, বিষ্ণুপুর, সুন্দরবন, মাইথন, বোলপুর ও কালিম্পংয়ের নাম । তবে এগুলি খুলে দিলেও রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে নির্দেশিকা জারি করে পর্যটকদের কিছু বিধি নিষেধ মেনে চলতে হবে ।

কাছে পিঠে ঘুরে আসার জন্য বকখালি আদর্শ

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক, কি কি মেনে চলতে হবে পর্যটকদের। পর্যটকদের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে  প্রথমত জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যাবতীয় বুকিং হবে অনলাইনে। পাশাপাশি ওই সব লজের প্রতিটি রুমে স্যানিটাইজার প্যাক চালু করছে রাজ্য। একজন ব্যবহারের পর ওই প্যাক ফেলে দেওয়া হবে। প্যাকে থাকবে টুথপেস্ট, টুথব্রাশ, চিরুনি, তোয়ালে, সাবান শ্যাম্পু-সহ আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র। তার জন্য পর্যটকদের কাছ থেকে বাড়তি কিছু দাম নেওয়া হবে কিনা তা অবশ্য জানা যায়নি। ওই সব রুম ও সেখানে থাকা আসবাব, বিছানা স্যানিটাইজ করার জন্য ওই সব লহের কর্মীদের ইতিমধ্যেই প্রশিক্ষণ দেওয়ার কাজ শুরু করেছে রাজ্য সরকার। তবে লজ খুললেও লজের ডাইনিং হলে আপাতত খাবার দেওয়া হবে না। শুধুমাত্র রুম সার্ভিস করা হবে। সেই সঙ্গে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে পর্যটকদেরও। ব্যবহার করতে হবে মাস্কও।

এই সব সুরক্ষাবিধি মেনে চলতে পারলেই আপনি বেরিয়ে পড়তে পারবেন এই নির্দিষ্ট এলাকাগুলি ভ্রমণে ।

মন্তব্য
Loading...