আমেরিকার অনুমোদিত প্রথম ডেঙ্গু প্রতিরোধী ভ্যাক্সিন

0

বাংলাদেশে সর্বোচ্চ আলোচিত বিষয় এখন ডেঙ্গু। বিশ্বজুড়ে প্রায় ৪০ কোটি মানুষ ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হন। গবেষণায় দেখা যায় ২০ হাজার মার যান। সারা বিশ্বে প্রায় দেশগুলিতে যেখানে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব সেখানে যুক্তরাষ্ট্রে ডেঙ্গু নাই বললেই চলে।

১ লা মে ডেঙ্গুর ভেক্সিন হিসাবে ডেংভেক্সিয়া অনুমোদন দেয়া হয়। যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ডেঙ্গুর এ  ভ্যাক্সিনের অনুমোদন দিয়েছে । অনুমোদনপ্রাপ্ত ভ্যাক্সিনটি ৯ থেকে ১৬ বছর বয়সীদের মধ্যে চার ধরনের ডেঙ্গু ভাইরাসই প্রতিরোধ করবে।

যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের ডেপুটি কমিশনার আন্না আব্রাহাম বলেন, মানুষের স্বাস্থ্যঝুঁকি মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ বিভাগ এবং বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থাসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার সঙ্গে আমরা কাজ করছি। ডেঙ্গু রোগের কোনও প্রতিকার ছিল না। ফলে নতুন এই ভ্যাক্সিন যুক্তরাষ্ট্রের বেশকিছু অঞ্চলের মানুষের ঝুঁকি অনেক কমিয়ে দেবে।

যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রের হিসাব বলছে, বিশ্বের এক-তৃতীয়াংশ মানুষ ডেঙ্গু ভাইরাসের ঝুঁকিতে বসবাস করছে। মূলত গ্রীষ্মমণ্ডলীয় অঞ্চলের মানুষরা এই রোগে বেশি আক্রান্ত হন। ডেঙ্গু ভাইরাসে কেউ আক্রান্ত হলে শুরুতেই বোঝা যায় না। যে কারণে অনেকেই এটাকে সাধারণ জ্বর বা ভাইরাস জ্বর ভেবে থাকেন।

এ কারণে পরবর্তীতে ডেঙ্গু জ্বর মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে এবং রোগী মারাও যেতে পারে। ডেঙ্গু জ্বরের উপসর্গ হতে পারে- পেট ব্যথা, বমি বা বমিভাব, রক্তপাত, শ্বাস-প্রশ্বাসে জটিলতা ইত্যাদি। এই রোগে হাসপাতালে নেয়া রোগীদের শতকরা ৯৫ ভাগই দ্বিতীয় ডেঙ্গু ভাইরাসে আক্রান্ত থাকেন। ডেঙ্গুর এখনও পর্যন্ত নির্দিষ্ট কোনও ওষুধ আবিষ্কৃত হয়নি।

মোট ৩৫ হাজার রোগীর ওপর ডেঙ্গু প্রতিরোধী ভ্যাক্সিনটির কার্যকারিতা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে ৯ থেকে ১৬ বছর বয়সী ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে প্রায় ৭৬ শতাংশ কার্যকারিতা পাওয়া গেছে। ইতোমধ্যে ১৯টি দেশ এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নে ডেংভেক্সিয়ার অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
মন্তব্য
Loading...