ভোররাতে আবার ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড; গ্রেপ্তার কারখানার মালিক ও ম্যানেজার

0

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্কঃ সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতেই ফের আগুনের গ্রাসে রাজধানী দিল্লী । গত শনিবার একটি বাড়িতে আগুন লাগার ঠিক এক সপ্তাহের মধ্যে আজ ভোর রাতে একটি প্লাইউডের কারখানায় আগুন লেগে যায় । খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে দমকল বাহিনীর ২১ টি ইঞ্জিন পৌঁছায় এবং আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে । কারখানার মালিক এবং ম্যানেজারকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে ।

গত শনিবার,  ভোর ৪টে নাগাদ দিল্লির রানি ঝাঁসি রোডের আনাজ মান্ডি এলাকায় একটি চারতলা বাড়ির তিনতলায় আগুন লাগে । যখন আগুন লাগে, তখন বেশিরভাগ মানুষ ঘুমন্ত অবস্থায় ছিল ।ব্যাগ, জুতো তৈরির ওই কারখানায় প্লাস্টিক, রেক্সিনের মতো দাহ্য বস্তু প্রচুর পরিমাণে জমানো থাকায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে হিমসিম খেতে হয়েছিল দমকল বাহিনীকে । সেই সময়    ভয়াবহ আগুনের গ্রাসে ঝলসে যান অন্তত ৬৩ জন। হাসপাতালে নিয়ে যাবার পর তাঁদের মধ্যে মৃত্যু হয় ৪৩ জনের। আজ  শনিবার ভোরে ফের বিধ্বংসী আগুন লাগে পশ্চিম দিল্লির মুন্ডকা এলাকার একটি প্লাইউড কারখানায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় দমকলের ২১টি ইঞ্জিন । হতাহতের খবর এখনও পাওয়া না গেলেও বেশ কয়েক ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে।

স্থানীয় সুত্র থেকে জানা গেছে, আজ ভোর  ৫টা নাগাদ পশ্চিম দিল্লির মুন্ডকা এলাকায় একটি প্লাইউড কারখানায় প্রথমে আগুন লাগে । এরপর আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে কারখানার বিপরীতে  একটি বাল্ব কারখানাতেও ।আগুন লাগার সাথে সাথে  দমকল বাহিনীকে খবর দেওয়া হলে,  প্রথমে দমকলের ১০টি ইঞ্জিন পৌঁছয়। তারপর আরও ১১টি ইঞ্জিন নিয়ে যাওয়া হয়। দমকল বাহিনী সঠিক সময়ে পৌঁছে যাওয়ায় আগুন বেশী ছড়ানোর আগেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনা হয় ।

দমকল বাহিনীর এক অফিসার এই অগ্নি কাণ্ড প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, “৫টা নাগাদ আমাদের ফোনে এই আগুন লাগার খবর দেওয়া হয়। আমরা সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে পৌঁছে যাই। এটা প্লাইউড কারখানার গোডাউনে কাঠ মজুত করে রাখা হয়েছিল। সেখানে প্রথমে আগুন লাগে। কিছুক্ষণের মধ্যেই তা আশেপাশের কিছু কারখানায় ছড়িয়ে পড়ে। কিন্তু আমরা দ্রুত সেই আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছি। এখনও খতিয়ে দেখা হচ্ছে কোথাও আগুনের ফুলকি বা ধোঁয়া দেখা যাচ্ছে কিনা। ভাগ্য ভাল, কারখানার ভিতরে কেউ ছিলেন না। এখনও পর্যন্ত হতাহতের কোনও খবর নেই।”

তবে পুলিশ প্রাথমিকভাবে মনে করছে কারখানার মধ্যকার ইলেকট্রিক লাইনের কোন ত্রুটি বা সর্ট সার্কিটের কারনে আগুন লাগতে পারে । তবে এই ঘটনার তদন্ত শুর করেছে ।কারখানার মালিক রেহান ও ম্যানেজার ফুরকানকে গ্রেফতার করা হয়।

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
মন্তব্য
Loading...