সময়ের সাথে হাত মিলিয়ে

Advertisement

সমীক্ষা রিপোর্টঃ জিনপিং নয়, বরং ৫০ শতাংশ চীনার পছন্দের মানুষ নরেন্দ্র মোদী

0

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্কঃ সীমান্ত নিয়ে স্বাধীনতার পর থেকেই চীনের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে ভারত । কোনকালেই চীনের সাথে ভারতের সম্পর্ক ভাল ছিল – একথা বলা যাবে না । বরং লাদাখ সীমান্তে সংঘর্ষের পর দুই দেশের সম্পর্কের অবনতি হয়েছে খুব দ্রুত । কিন্তু সমীক্ষায় উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য ।অবাক করা খবর হলেও সত্যি  চিনের অর্ধেক মানুষের পছন্দের তালিকায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির (PM Narendra Modi) নেতৃত্বাধীন সরকার !

সম্প্রতি চীনের সরকারি মুখপাত্র গ্লোবাল টাইমসের (Global Times) তাদের রিপোর্টে দাবী করেছে এই মুহূর্তে চীনের ৫০ শতাংশ মানুষের পছন্দ নরেন্দ্র মোদী । গ্লোবাল টাইমসের (Global Times) একটি সমীক্ষায় ভারত ও চিনের মধ্যে কোন দেশের সরকার বেশি পছন্দ চিনের জনগণের? এই প্রশ্ন রাখা হয়েছিল । সেখানে দেখা যায় ৫০ শতাংশ চিনা নাগরিক ভারতের মোদী সরকারের পক্ষে তাদের মত দিয়েছেন । বাকি ৫০ শতাংশ নাগরিক নিজের দেশের সরকারের প্রতি আস্থা প্রকাশ করেছেন ।

সীমান্ত নিয়ে চীনের সাথে শুধু ভারত নয়, অন্যান্য দেশের সাথেও বিরোধ হয়েছে । ভারতের সাথে সম্পর্কের চূড়ান্ত অবনতি হয়েছে  গালওয়ান উপত্যকায় চিনের সেনার সাথে ভারতীয় জওয়ানদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর । চীনের বিরুদ্ধে ভারতের মোদী সরকার একের পর এক পদক্ষেপ যথেষ্ট চাপে ফেলেছে বেজিংকে ।  ভারতীয় সেনার শক্তি বাড়াতে মোতায়েন করা হয়েছে ইগলা এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম। এমন পরিস্থিতিতেও চিনের অর্ধেক মানুষের পছন্দের তালিকায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন সরকার যথেষ্ট ইঙ্গিত বহন করে ।

চীনের সরকারি মুখপাত্র গ্লোবাল টাইমসের (Global Times) তাদের সমীক্ষায় আরও কয়েকটি প্রশ্ন রেখেছিল । সেই প্রশ্নের উত্তরে উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর বিষয় । দেখা গেছে, চিনের ৭০ শতাংশ মানুষ বিশ্বাস করেন বিগত কয়েকদিনে ভারত-চিন সম্পর্ক খারাপ হয়েছে। চিনের প্রতি ভারতীয় নাগরিকরা বেশি ক্ষুন্ন হয়েছেন। আবার ৩০ শতাংশ চিনা নাগরিকের বিশ্বাস ভবিষ্যতে ভারত-চিন সম্পর্ক ভালো হওয়ার আশা রয়েছে। যদিও ৯ শতাংশ নাগরিকের ধারণা, ভারত ও চিনের মধ্যে সম্পর্ক ভাল হলেও তা খুব বেশিদিন টিকবে না। কিন্তু ২৫ শতাংশ মানুষের আবার বিশ্বাস, ভবিষ্যতে ভারত ও চিনের সম্পর্ক মজবুত হবে।

তবে সমীক্ষায় যাই রিপোর্ট আসুক না কেন, ভারতের নরেন্দ্র মোদী সরকার বেজিংকে যে চাপে ফেলতে পেরেছে তা স্পষ্ট । ইতিমধ্যে ইসরায়েল, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, জাপান, ভিয়েতনাম প্রভৃতি দেশের সমর্থন আদায় করতে সক্ষম হয়েছে গেরুয়া দল । ভারতে চিনা পন্য বয়কটের সিদ্ধান্তের প্রভাব চিনের অর্থনীতে বেশ ভালভাবেই পড়েছে। ভারতের মতো বিশাল দেশের বাজার হারাতে হয়েছে শি জিনপিং সরকারকে। তার ফলে চিনের সাধারণ নাগরিকদের মনে সরকারের প্রতি বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টির প্রতিফলন গ্লোবাল টাইমসের সমীক্ষায় পাওয়া গিয়েছে।

মন্তব্য
Loading...