সময়ের সাথে হাত মিলিয়ে

Advertisement

রাম নেপালি এবং রামের জন্মস্থান নেপালে, প্রমান করতে উঠে পড়ে লেগেছে নেপাল

0

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্কঃ কিছুদিন আগে নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা  ওলি মন্তব্য করেছিলেন, অযোধ্য নাকি ভারতে নয়। এমনকি ভগবান রামও নাকি ভারতীয় নন। আসল অযোধ্যা রয়েছে নেপালে।এই মন্তব্যের পরেই শুরু হয় বিতর্ক । এবার ওলি তার মন্তব্যের প্রমানে উঠে পড়ে লেগেছে ।

জানা গেছে, ভগবান রাম নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে নেপালের প্রধান মন্ত্রী কে পি শর্মা ওলি চুপ করে বসে নেই । বরং তথ্য প্রমান যোগাড় করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছেন ।নেপালের বিদেশমন্ত্রকের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে,  প্রধানমন্ত্রী ওলির মন্তব্য কাউকে আঘাত করার জন্যে নয়। বিতর্কের অবসান ঘটলেও প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্য যে ঠিক তা প্রমাণ করতে নামছে কাঠমান্ডু।এদিকে নেপালের পুরাতত্ত্ব বিভাগ জানিয়েছে যে, তাঁরা খুব শীঘ্রই ভগবান রামের নেপালে জন্ম নিয়ে গবেষণার কাজ শুরু করবে।

নেপালের প্রধান মন্ত্রীর ভগবান রামকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করার পরেই অযোধ্যার পুরোহিতরা তীব্র প্রতিবাদ জানায় । অন্যদিকে বৌদ্ধ ভিক্ষুরা এতদিন পরে দাবী করেছে, অযোধ্যায় নাকি বৌদ্ধ বিহার ছিল ! ইউনেস্কর সামনে অযোধ্যাতে খোঁড়াখুড়ির দাবী জানায় তারা । চীনের সাথে নেপাল সরকারের বন্ধুত্ব এখন বেশ গভীর । ভারতের সাথে নেপালের সম্পর্ক ধিরে ধিরে তলানিতে ঠেকছে । কিছুদিন আগে ভারতের কিছু এলাকা নিজেদের মানচিত্রে যোগ করে নেয় নেপাল । সেখান থেকেই নেপালের সাথে বিরোধ শুরু হয়েছে ।

অযোধ্যা কিম্বা রাম জন্মভুমি প্রমান করার জন্য নেপালের পদক্ষেপ নিয়ে নেপালের পুরাতত্ত্ব বিভাগের ডিজি দামোদর গৌতম  জানিয়েছেন,  একটি দায়িত্ববান সংস্থা হিসেবে দেশে সাংস্কৃতিক আর ধার্মিক স্থলগুলি নিয়ে পুরাতাত্ত্বিক খনন, অনুসন্ধান এবং বিশ্লেষণ করা হবে।দেশের প্রধানমন্ত্রীর বয়ানের পর আমাদেরও দায়িত্ব রয়েছে কিছু। আর সেই কারণেই নেপালের সঙ্গে রামের সম্পর্ক খুঁজতে মরিয়া সে দেশ। তিনি আরও জানিয়েছেন, খুব শীঘ্রই একটি আলোচনা সভার আয়োজন করা হবে। যেখানে ইতিহাসবিদ, সাংস্কৃতিক বিশেষজ্ঞ, ধার্মিক নেতা, অধ্যাপক আর গবেষকরা উপস্থিত থাকবেন। এরপর খননের প্রধান স্থান নির্ধারণ করা হবে।

ওলি স্পষ্টভাবে বলেন, ‘বীরগঞ্জের পশ্চিমে থোরিতে অবস্থিত অযোধ্যা। নেপালেই অবস্থিত বাল্মিকী আশ্রম আর নেপালেই রিদিতে দশরথ পুত্র সন্তান লাভের জন্য যজ্ঞ করেছিলেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘দশরথের ছেলে রাম ভারতীয় ছিলেন না আর অযোধ্যাও নেপালে।’  নেপালের  পুরাতত্ত্ব বিভাগের সুত্র অনুযায়ী জানা গেছে, আপাতত থোরি গ্রামে খননকার্য শুরু হবে।

মন্তব্য
Loading...