জলন্ত চিতা থেকে ময়নাতদন্তের জন্য দেহ তুলে নিয়ে গেল পুলিশ; ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্কঃ চিতার উপরে দেহ রয়েছে এবং চিতা তখন জ্বলছে । সেই জলন্ত চিতা নিবিয়ে অর্ধ দগ্ধ দেহ ময়না তদন্তের জন্য নিয়ে গেল পুলিশ । ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের বুলন্দশহরের চোলা চৌকি গ্রামে ।

চিতা জ্বলছে এবং তাতে শোয়ানো রয়েছে এক তরুণী গৃহবধূর দেহ । তাঁরই সত্‍কার হচ্ছে । ঠিক তখনই সেখানে পুলিশ নিয়ে  হাজির হন তরুণীর বাবা ও ভাই । পুলিশের সাথে সেখানে আসে দমকলও ।দমকল বাহিনীর সাহায্য নিয়ে পুলিশ চিতা নিবিয়ে ফেলে এবং  পোড়া কাঠ সরিয়ে প্রায় আধপোড়া দেহ চিতা থেকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়  ময়নাতদন্তের জন্য । মৃতা তরুণীটির নাম পুনম ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রায় একই এলাকায়  ২০১৭ সালে পুনমের সঙ্গে পুষ্পেন্দ্র-র দেখা শোনা করেই বিয়ে হয়।  কিন্তু গোল বাঁধে বিয়ের কিছুদিন পর ।বিয়ের কিছু দিনের মধ্যেই পুনমের বোনের সঙ্গে পুষ্পেন্দ্রর একটি বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক তৈরি হয় । এই কথা পুনম জানতে পারে এবং তারপর থেকেই  স্বামীর সঙ্গে এই নিয়ে তাঁর ঝগড়া হত ।কিন্তু পুষ্পেন্দ্র সেই সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসেনি । মৃতা তরুণীর বাবা বলেছেন,   তাঁর মেয়ের ওপর অকথ্য অত্যাচার করত পুষ্পেন্দ্র । যাতে তাঁর মেয়ের ওপর অত্যাচার না হয় সেজন্য পুষ্পেন্দ্রকে চাহিদামত টাকাও দিতেন তিনি । কিন্তু তাতেও কোন ফল হয়নি, তার মেয়ের উপর অত্যাচার কমেনি ।

ঘটনাচক্রে,  গত রবিবার পুনমের বাবা তাঁর এক পরিচিতের কাছে পুন মের আত্মহত্যার খবর পেয়ে  দ্রুত ছেলেকে সঙ্গে করে পুনমের শ্বশুরবাড়িতে যান । সেখানে গিয়ে  একটি খাটিয়ায় নিথর হয়ে শুয়ে থাকা অবস্থায় তার মেয়েকে দেখতে পান । পুনমের  শ্বশুরবাড়ির লোকজন  পুনম আত্মহত্যা করেছে বলে জানালে তিনি প্রতিবাদ করেন । তখন পুনমের বাবা ও ভাইকে জোর করে  একটি ঘরে বন্ধ করে দেহ নিয়ে শ্মশানে যায় ।

কিন্তু, পুন মের বাবা ও ভাই কোনভাবে পালিয়ে থানায় খবর দিলে ঘটনা স্থলে পুলিশ দমকল বাহিনী নিয়ে হাজির হয় । ওই তরুণীর বাবা ও ভাইয়ের অভিযোগক্রমেই  পুলিশ যখন ঘটনাস্থলে পৌঁছায়, ততক্ষণে চিতায় আগুন দেওয়া হয়ে গিয়েছে । পুলিশ মৃত দেহ জলন্ত চিতা থেকে উদ্ধার করে । পুনমের বাবা ও ভাইয়ের দাবি কোনও আত্মহত্যা নয়, পুনমকে হত্যা করেছে তাঁর শ্বশুরবাড়ির লোকজন । পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। ।

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
মন্তব্য