Murshidabad Hazarduari Palace (মুর্শিদাবাদের হাজারদুয়ারি প্যালেস)

0

Murshidabad Hazarduari Palace

 

Since ancient times, historian India has been developed as a unique blend of education, culture and prosperity. Looking at the history of the world, it is clear that once upon a time in the whole world India has made the foremost place in education, civilization, culture and prosperity. And that is why the whole Indian is proud of their glorious history forever. Murshidabad Hazarduari Palace (মুর্শিদাবাদের হাজারদুয়ারি প্যালেস)

In 1757, through the final defeat of Bengal’s king Siraj-ud-Daulah to the British East India Company, the active participation of colonial power in India’s politics was largely noticed. From this period, British power became engrossed in their empire in India.

Palassey monument
Palassey Monument

Historical Murshidabad city was the capital city of Bengal at the time of ‘Nawab’. Later, the British East India Company was also started to concentrating on spreading their empire from here, ‘Calcutta’ was not established yet.

For that reason, a beautiful microfilm of architecture of colonial and ancient Bengali era has been developed in Murshidabad, the ancient capital of Bengal. Prior to independence, the city is proud of its historic monuments.

 

History of Hazarduari:

After hearing about the historical city Murshidabad, at first which name is beeing peeped in every Bengali mind, is the ‘Hazarduari’. Many people believe that this palace was built by king Siraj-ud-Daulah, but in reality it had no relation with king Siraj.

About 80 years after the death of king Siraj-ud-Daulah, king Humayun Ja has built a European-style palace in the eastern bank of the Bhagirathi, which is the Hazarduari palace.

Hazarduari palace
Hazarduari Palace

 

Structure:

It took almost nine years to build this huge palace spread over an area of ​​about 41 acres on the eastern bank of the Bhagirathi river. ‘Hazarduari’ was made in full European architectural design and it was designed by renowned foreign architect Duncan McLeod.

The palace has a total of 1000 doors decorating in all, due to its name ‘Hazarduari’. But in reality, the number of its original gate was 900, and the rest of the 100 were created to confuse the enemies.

The palace is located in an intersection called ‘Kila Nizamat’ located on the eastern bank of the river Bhagirathi. In addition to the palace, there are more architectural structures, named ‘Nizamat Imambara’, ‘Wasif Manzil’, ‘Bachwali Tope’ and ‘Murshidabad Clock Tower’.

Field of Hazarduari

Spectacular Objects:

At that time it was a royal palace. At present, the palace has been transformed into a ruin and has been converted to a museum by creating a new palace in the same simulation, in the same way.

Here you can see the sword used by king Alibardi Khan, multi-tube gun, knife of Mirkashim, silver palanquin of Siraj, Flower pot, Queen Victoria’s gift etc. Without this horse carriage, camel car, arms used in Palassey war are also seen at here.

Insight of Hazarduari


মুর্শিদাবাদের হাজারদুয়ারি প্যালেস

 

প্রাচীনকাল থেকেই শিক্ষা, সংস্কৃতি এবং সমৃদ্ধির এক অপূর্ব মিশেল হিসেবে গড়ে উঠেছে ঐতিহাসিক ভারতবর্ষ। বিশ্বের ইতিহাস খতিয়ে দেখলে স্পষ্ট জানা যায় যে, শিক্ষা, সভ্যতা, সংস্কৃতি ও সমৃদ্ধিতে একসময় সমগ্র বিশ্বের মধ্যে সর্বা‌গ্রে স্থান করে নিয়েছিল ভারতবর্ষ। আর ঠিক একারণেই সমগ্র ভারতবাসী চিরকাল তাদের গৌরবান্বিত ইতিহাসকে ঘিরে বেশ গর্ববোধ করে থাকে। Murshidabad Hazarduari Palace (মুর্শিদাবাদের হাজারদুয়ারি প্যালেস)

১৭৫৭ খ্রিষ্টাব্দে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কাছে বাংলার নবাব সিরাজ-উদ্‌-দৌলার চূড়ান্ত পরাজয়ের মধ্য দিয়েই মূলত ভারতের রাজনীতিতে ঔপনিবেশিক শক্তির সক্রিয় অংশগ্রহণ লক্ষ্য করা যায়। এই সময় থেকেই ব্রিটিশ শক্তি ভারতবর্ষে তাদের সাম্রাজ্য বিস্তারে মগ্ন হয়ে ওঠে।

Palassey monument
পলাশী স্তম্ভ

তৎকালীন বাংলার নবাবের রাজধানী ছিল ঐতিহাসিক মুর্শিদাবাদ শহর। পরবর্তীকালে ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি’ও এখান থেকেই সাম্রাজ্য বিস্তারে মনোনিবেশ করতে শুরু করে, রাজধানী ‘কলকাতা’ তখনও প্রতিষ্ঠিত হয়নি।

আর একারণেই ঔপনিবেশিক এবং নবাবী আমলের স্থাপত্যের এক সুন্দর মিশেল গড়ে উঠেছে বাংলার প্রাচীন রাজধানী মুর্শিদাবাদে। স্বাধীনতার পূর্ব থেকেই এই শহর তাঁর ঐতিহাসিক নিদর্শনগুলি নিয়ে সগৌরবে দণ্ডায়মান রয়েছে।

 

হাজারদুয়ারি’র ইতিহাসঃ

মুর্শিদাবাদের কথা শুনলে সর্বপ্রথম যে নামটি সকল বাঙালীমনে উঁকি দেয়, তা হল ‘হাজারদুয়ারি’। অনেকে মনে করেন যে এই প্রাসাদটি বাংলার নবাব সিরাজ-উদ্‌-দৌলা নির্মাণ করেছিলেন, তবে বাস্তবে সিরাজের সাথে কোনও সম্পর্কই ছিলনা হাজারদুয়ারি’র।

নবাব সিরাজ-উদ্‌-দৌলা’র মৃত্যুর প্রায় ৮০ বছর পর নবাব হুমায়ুন জা তাঁর সৌখিনতার চিহ্নস্বরূপ ভাগীরথীর পূর্ব তীরে ইউরোপীয় ধাঁচের এই রাজপ্রাসাদ’টি নির্মাণ করেন।

Hazarduari palace
হাজারদুয়ারি প্যালেস

 

গঠনঃ

ভাগীরথী নদীর পূর্ব তীরে প্রায় ৪১ একর এলাকা জুড়ে বিস্তৃত এই বিশাল প্রাসাদ’টি তৈরি করতে প্রায় নয় বছর সময় লেগেছিল। ‘হাজারদুয়ারি’ সম্পূর্ণ ইউরোপীয় স্থাপত্যের ধাঁচে তৈরি এবং এটির নকশা তৈরি করেছিলেন প্রখ্যাত বিদেশী স্থপতি ডানকান ম্যাকলিয়ড।

প্রাসাদ’টিতে সব মিলিয়ে মোট ১০০০টি দরজা সুসজ্জিতভাবে থাকার কারনে এর নাম ‘হাজারদুয়ারী’। তবে বাস্তবে এর মোট আসল দরজা’র সংখ্যা ৯০০টি, বাকি ১০০টি শত্রুপক্ষকে বিভ্রান্ত করবার জন্য নির্মিত হয়েছিলো।

প্রাসাদ’টি ভাগারথী নদীর পূর্ব তীরে অবস্থিত ‘কিলা নিজামত’ নামক একটি ঘের এর মধ্যে অবস্থিত। প্রাসাদ’টির পরিধিতে একইসাথে আরও কিছু স্থাপত্য অবস্থিত, যথা – ‘নিজামত ইমামবারা’, ‘ওয়াসিফ মঞ্জিল’, ‘বাচ্চাওয়ালি তোপ’ এবং ‘মুর্শিদাবাদ ক্লক টাওয়ার’।

Field of Hazarduari

নিদর্শনঃ

তৎকালীন সময়ে এটি একটি রাজকীয় প্রাসাদ ছিল। বর্তমানে আসল প্রাসাদ’টি ধ্বংসাবশেষে পরিণত হয়ে ভাগীরথী’র জলে তলিয়ে যাওয়াই একই অনুকরণে নতুন করে প্রাসাদ’টি তৈরি করে একটি যাদুঘরে রূপান্তরিত করা হয়েছে। সিরাজ-উদ-দৌলা এর মূল্যবান তলোয়ার থেকে শুরু করে বাংলার নবাব, অভিজাত শ্রেণী ও ব্রিটিশ শাসক’দের ব্যাবহার্জ ও শৌখিন দ্রব্যাদি এখানে রাখা আছে।

এখানে নবাব আলিবর্দি খান এর ব্যবহৃত তলোয়ার, বহু নল বিশিষ্ট বন্দুক, মিরকাশীমের ছোড়া, সিরাজের রূপোর পালকি, পানের বাটা, চিনামাটির ফুলদানি, রাণী ভিক্টোরিয়ার উপহার, নবাবদের বিলিয়াড বোর্ড থেকে শুরু করে বেগমদের পালকি, ঘোড়ার গাড়ি, উটের গাড়ি এবং পলাশীর যুদ্ধে ব্যবহৃত অস্ত্রশস্ত্র, এমন বহু ঐতিহাসিক নিদর্শন রয়েছে।

Insight of Hazarduari

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
মন্তব্য
Loading...