মিয়া খলিফার ফেলে আসা অন্ধকার জীবন নিয়ে মাশুল গুনছেন

মিয়া খলিফার ফেসে আসা অন্ধকার জীবন নিয়ে মাশুল গুনছেন। একজন লেবানিয় মার্কিন সামাজিক মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও ওয়েবক্যাম মডেল। তিনি প্রাপ্তবয়স্ক মডেল হিসাবে পরিচিত। তিনি একজন পর্ন তারকা।  ২০১৪ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত পর্নোগ্রাফিক অভিনেত্রী হিসাবে পরিচিত। বৈরুতে জন্ম নেওয়া মিয়া খলিফা ২০০০ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে স্থানান্তরিত হন। ২০১৪ সালের অক্টোবরে পর্ণোগ্রাফি চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন এবং পর্ণহাব ওয়েবসাইটের তালিকায় ডিসেম্বরে ১ নম্বরে অবস্থান করেন। পর্ন তারকা হিসাবে তার খ্যাতি আজ সারা বিশ্বে।

মিয়া খলিফার ফেলে আসা জীবন

পর্নোগ্রাফি থেকে তাঁর আয় নিয়ে কিছু ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে। সেখান থেকে খুব কম টাকাই পেয়েছেন মিয়া খলিফা। নিজের ভেরিফায়েড টুইটার হ্যান্ডলে মিয়া খালিফা লিখেছেন, অনেকে ভাবেন পর্নোগ্রাফি থেকে তিনি কোটি কোটি টাকা আয় করেন। এটা ঠিক নয়। তিনি পর্নো ইন্ডাস্ট্রি থেকে মোট ১২ হাজার ডলার (ভারতীয় মুদ্রায় ৮ লক্ষ ৫৫ হাজার টাকা) আয় করেছেন। অল্প বয়সে টাকা রোজগার আরেক অজানা জগতের হাতছানিতে পর্ন ছবির জগতে যোগ দেন মিয়া খলিফা। মাত্র তিন মাসেই তার এ ছবিতে অভিনয়ের মোহভঙ্গ হয়। মাত্র ১২ হাজার ডলারের জন্য সকলকে হারান তিনি। যখন সব বুঝতে পারেন তখন আর ভুল শোধরানোর সুযোগ নেই। আর জীবনের এমই জায়গায় গেছেন তা শোধরানোর উপায় নেই। পর্ন দুনিয়া ছাড়লেও মিয়া খলিফা অনুশোচনা করে জীবন কাটাচ্ছেন। ব্যক্তিগত হীনমন্যতা থেকেই এই সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য এই পেশায় এসেছিলেন বলে জানান মিয়া।

আরো পড়ুন: পর্ণ স্টার মিয়া খলিফা নিজের ভুল নিজেই ক্ষমা করতে পারেন না (ভিডিও সহ)

সম্প্রতি বিবিসির হার্ডটক অনুষ্ঠানে সাক্ষাতকার দিতে গিয়ে বলেন, “ছোটবেলা আমার ওজনের জন্য ভুগেছি এবং নিজেকে কখনও পুরুষের দৃষ্টি আকর্ষণের যোগ্য বলে মনে হতো না। আমার নারীত্বকে যেন কেউ অনুভব করতো না। পর্নগ্রাফির জগৎ থেকে বের হয়ে আসলেও জীবনের ভয়াবহ তিন মাসের অভিজ্ঞতা ভুলতে পারেন না। কারন মানুষ তো তার পরিচয় ভোলে না। সেই ড্যাবডেবে চোখে এখনও তাকায়। নিজেই বুঝতে পারেন হয়তো সময় নিয়ে সবই স্বাভাবিক হতে পারবে।

মিয়া খলিফার ফেলে আসা জীবন

খুব অল্প সময় কাজ করে পর্ন জগতের নায়িকার খ্যাতি পান মিয়া খলিফা। যে পরিচয় এখনও তার কাছে অভিশাপ মনে হয়। খলিফা মনে করেন পর্নগ্রাফি জগৎ থেকে বের হওয়া সহজ নয়। ইন্ড্রাস্ট্রিতে ঢোকার পরে নানা ফাদে আটকে পড়ে অল্প বয়সী মেয়েরা। অনেক সময় নারী পাচারকারীদের মাধ্যমে মেয়েদের এ জগতে নিয়ে আসা হয়। আবার অনেক মেয়ে অপরিণত মনে, ভুল সিদ্ধান্তে অথবা ভুল মানুষের পাল্লায় পড়ে এজগতে আসেন। মিয়া খলিফাকে অনেক মেয়েই এ ধরনের কথা মেইল করে জানিয়েছেন তাদের জীবনের ভয়ঙ্কর গল্পগুলো।

মিয়া খলিফার ফেলে আসা

প্রসঙ্গত শীর্ষ পাচ পর্ন তারকার মধ্যে মিয়া খলিফা অন্যতম। ২০১৪ সালের অক্টোবরে পর্ণোগ্রাফি চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন এবং পর্ণহাব ওয়েবসাইটের তালিকায় ডিসেম্বরে ১ নম্বরে অবস্থান করেন। পর্ন তারকা হিসাবে তার খ্যাতি আজ সারা বিশ্বে। লেবানিজ মার্কিন পর্ণোগ্রাফিক অভিনেত্রী। পর্ন সিনেমা করায় তার দেশে লেবানন থেকে তাকে খুনের হুমকি এসেছিল। মিষ্টি গায়ের রঙ আর কিশোরী সুলভ মুখশ্রী যে কোন পুরুষকেই কুপোকাত করবে। সারা দুনিয়ায় এখন তিনিই সবচেয়ে আলোচিত ও জনপ্রিয় পর্ন তারকা।

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
মন্তব্য