চাঁদেরদক্ষিণ মেরুতে প্রথম পা ফেলল ভারত ; এমনই ঘোষণা করল ইসরো

0

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্ক: সারা বিশ্ব তাকিয়ে ছিল মহাকাশের দিকে । ইতিহাসের পথে একদম অন্তিম মুহূর্তে এসে থেমে গেল চন্দ্রযান-২এর 100% সাফল্য । চাঁদ থেকে ল্যান্ডার বিক্রম যখন মাত্র দু’কিলোমিটারের কিছু বেশি দূরে তখনই ল্যান্ডার বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল বিজ্ঞানীদের । অনেক চেষ্টার পরেও যখন তার সঙ্গে যোগাযোগ করা গেল না, তখন হতাশ হয়ে পড়েন বিজ্ঞানীরা।সেখানে ভারতের ইতিহাস তৈরির পথে সাক্ষী থাকার জন্য নরেন্দ্র মোদী হাজির ছিলেন । প্রধানমন্ত্রী শুক্রবার রাতেই ইসরোর কন্ট্রোল রুমে বিজ্ঞানীদের সান্ত্বনা দিয়ে বলেন, বি কারেজিয়াস।

পরে শনিবার সকালে তিনি ফের বিজ্ঞানীদের সাহস দেন। তাঁদের সঙ্গে হ্যান্ডশেক করেন। এমন সময় তিনি লক্ষ্য করেন, ইসরোর চেয়ারম্যান কে শিবনের চোখে জল। তাঁকে দেখে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন মোদীও। তিনি শিবনকে জড়িয়ে ধরে সান্ত্বনা দেন ।সারা দেশ জুড়ে একটা আবেগ মিশে গিয়েছিল এই অভিযানকে ঘিরে । এর আগেও তো মহাকাশ অভিযান হয়েছে । কিন্তু একসাথে এই আবেগ এতকাল চোখে পড়েনি । বিজ্ঞানীদের পাশাপাশি সাধারন মানুষ সামিল হয়েছিল একসাথে এই অভিযানের সাক্ষী থাকার জন্য । অবশেশে ইসরো থেকে জানানো হল চাঁদ ছুঁতে পেরেছে ভারত। রবিবারের দুপুরে এমনটাই ঘোষণা করেছে ইসরো ।

চাঁদের চারপাশে ঘুরতে থাকা অরবিটারই খুঁজে বার করেছে হারিয়ে যাওয়া বিক্রমকে । অরবিটারের  থার্মাল ইমেজে ধরা পড়েছে সেই ছবি । সেখানে দেখা যাচ্ছে চাঁদের বুকেই নেমেছে ল্যান্ডার বিক্রম । থার্মাল ইমেজের ছবিতে বিক্রম এখন কী অবস্থায় আছে, কেমন আছে সেটা ভাল ভাবে বোঝা যায়নি । যদিও ইসরো কর্তা কে শিবন জানিয়েছেন, বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা চলছে। চাঁদের কক্ষপথ থেকে রেডিও সিগন্যালের সাহায্যে বিক্রমকে পাবার চেষ্টা চালাচ্ছে অরবিটারও ।সেই ছবি কখন আবার অরবিটার পাঠাতে পারবে তারই অপেক্ষায় অধীর হয়ে রয়েছেন  ইসরোর মহাকাশবিজ্ঞানীরা ।

উল্লেখ্য,  সফট ল্যান্ডিং-এর আগে চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে মাত্র ২.১ কিলোমিটার উচ্চতায় আচমকাই সিগন্যাল পাঠানো বন্ধ করে দেয় ল্যান্ডার । সাক্ষী ছিল গোটা দেশ । ইতিহাস তৈরির সময় রাত জেগেছিল অগুনতি ভারতবাসী । ইস রো সেন্টারে বিজ্ঞানীদের সাথে ছিলেন স্বয়ং প্রধান মন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী । কিন্তু শেষ সময়ে সিগন্যাল হারিয়ে যাওয়ায় হতাশার সাগরে নিমজ্জিত হন সকলে ।

আজ দুপুরে বিক্রমের সন্ধান মিলানোর ঘোষণা হবার পর আবার আশার বাতি জ্বলে উঠল ।কিন্তু চাঁদের বুকেই নেমেছে বিক্রম এ বিষয়ে ইস রো নিশ্চয়তা দিলেও তবে তার সঠিক অবস্থান জানা যায়নি। অরবিটারের পাঠানো অপটিক্যাল ইমেজ দেখে ধারণা করা হচ্ছে, বিক্রম অক্ষত থাকলেও থাকতে পারে। তার ভিতরে রোভার প্রজ্ঞানও তাহলে ঠিকঠাকই থাকবে । যদি সব ঠিকঠাক থাকে তাহলে হয়ত মহাকাশ বিজ্ঞানে নব দিগন্তের পথিকৃৎ হবে ভারত ।

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
মন্তব্য
Loading...