সময়ের সাথে হাত মিলিয়ে

Advertisement

‘লাদাখ সীমান্তে আক্রমণাত্মক পদক্ষেপে শি জিনপিং এবং তাঁর সেনাবাহিনী উভয়েই ফ্লপড’-লেখক গর্ডন জি চ্যাং

0

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্কঃ  চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিং তাঁর সেনাবাহিনীকে রাজনৈতিকভাবে একত্রীকরণে এবং   অন্যান্য দেশকে ভয় দেখানোর কাজ নিখুঁতভাবে করতে পারলেও লাদাখ সীমান্তে ভারতের বিরুদ্ধে আক্রমানাত্মক মনোভাব দেখানোয় পুরোপুরি ফ্লপ । সম্প্রতি নিউজ উইকে একটি প্রবন্ধে লেখক গর্ডন জি চ্যাং এমনটাই উল্লেখ করেছেন ।

উল্লেখিত প্রবন্ধে গর্ডন জি চ্যাং উল্লেখ করেছেন, অপ্রত্যাশিতভাবে  ভারতীয় নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে সাম্প্রতিক উচ্চ-প্রোফাইলের আক্রমণে শি তার ভবিষ্যতের ঝুঁকি নিয়েছে এবং ভারতে এই আগ্রাসী পদক্ষেপের “স্থপতি” এবং তার পিপলস লিবারেশন আর্মি (পিএলএ) উভয়ই ফ্লপ হয়ে গেছে। তাঁর মতে, ভারতীয় সীমান্তে চীনা সেনাবাহিনীর ব্যর্থতার পরিণতি হবে।

তিনি ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন, এই ব্যর্থতাগুলি “চীনের আগ্রাসী শাসক – যিনি পার্টির কেন্দ্রীয় সামরিক কমিশনের চেয়ারম্যান হিসাবে পিএলএর নেতা তাকে উদ্বুদ্ধ করবে এবং আগামীতে ভারতীয় অবস্থানের বিরুদ্ধে আরও আক্রমণাত্মক আক্রমণ চালাবেন।” তবে ভারতের বিরুদ্ধে চীনারা কতখানি নিজেদের কার্যকর প্রমানিত করবে সে বিষয়ে গর্ডন সন্দেহ প্রকাশ করেছেন ।

গর্ডনের মতে,  পিপলস লিবারেশন আর্মির গ্রাউন্ড ফোর্সের লড়াইয়ের পরিস্থিতিতে সাফল্যের ট্র্যাক রেকর্ড নেই।1979 সালে যখন “ভিয়েতনামকে একটি শিক্ষা দেওয়ার চেষ্টা” করার সময় চীনারা ভিয়েতনামের মত  খুব ছোট প্রতিবেশী দেশের কাছ থেকে বিতাড়িত ও অপমানিত হয়েছিল । যদিও এক অভূতপূর্ব আধুনিকায়নের প্রচেষ্টার পরে, গ্রাউন্ড ফোর্স অনেক বেশি সুসজ্জিত এবং প্রশিক্ষিত, তবে যুদ্ধক্ষেত্রে এটি সম্ভবত খুব বেশি কার্যকর নয়।

অন্যদিকে ভারত আক্রমণকারীদের উন্নতির সুযোগ দিচ্ছে না। উভয় পক্ষ সবেমাত্র সতর্কতামূলকভাবে  গত কয়েক দশকের পুরানো নিয়ম লঙ্ঘনের জন্য একে অন্যকে অভিযুক্ত করেছে। তবে বাস্তবে দেখা যাচ্ছে যে চীনা সেনার চেয়েও ভারতের সেনারা বেশি সাহস প্রদর্শন করছে।

চীনের রাষ্ট্রপ্রধান শি সম্পর্কে গর্ডন বলেছেন,  “তিনি সেনাবাহিনীর রাজনৈতিক সংহতকরণে সফল  এবং তিনি সামরিক সরঞ্জামের জন্য প্রচুর পরিমাণে ব্যয় করতে পারবেন। অন্যান্য দেশকে ভয় দেখানোর শিল্পও তিনি পারফেক্ট করেছেন।কিন্তু বাস্তবে শি জিনপিং তাঁর সামরিক বাহিনীকে এখনও একটি লড়াইয়ে দেখাতে পারেননি, যেখানে তাকে জঘন্য মুল্য চোকাতে হয়নি । ভারতীয় সেনাবাহিনীকে কাবু করতে না পারা মানেই  কাউকে ভয় দেখানো শি’র ক্ষমতা অনেকটাই হ্রাস পেয়েছে। ”

জানা গেছে,  ১৪ নং করপোরের কমান্ডার লেঃ জেনারেল হরিন্দর সিং এবং দক্ষিণ জিনজিয়াং সামরিক প্রধান মেজর জেনারেল লিউ লিন ২ আগস্ট থেকে দেখা করেননি। চীন পাঙ্গং তসো-চুষুল এলাকায় একে অপরের শুটিং দূরত্বের মধ্যে কয়েক হাজার সৈন্য, ট্যাঙ্ক এবং সামরিক সজ্জা একত্রীকরণ করেছে । অন্য দিকে ভারতীয় সৈন্যরা পানগং তসোর দক্ষিণ পাড়ের ঠাকুং থেকে গুরুং হিল, স্পাংগুর গ্যাপ, মাগর হিল, মুখপাড়ী, রেজং লা এবং রেকিন লা (রেচিন পর্বতমালা) এবং অন্যান্য উচ্চ স্থানে অবস্থান করছে চীনের যে কোন আক্রমণ প্রতিহত করতে ।

মন্তব্য
Loading...