সময়ের সাথে হাত মিলিয়ে

Advertisement

বীরপুরুষ (Birpurush Poem)- রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

0

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘বীরপুরুষ’ (Birpurush Poem)

 

‘বীরপুরুষ’ কবিতা’টি বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের লেখা একটি বাংলা কবিতা, যেখানে একটি ছেলে তার কল্পনায় বীরপুরুষ সেজে তার মা’কে ডাকাত’দের হাত থেকে বাঁচানোর কথা ভাবে।

বীরপুরুষ

 

মনে করো, যেন বিদেশ ঘুরে
মাকে নিয়ে যাচ্ছি অনেক দূরে।

তুমি যাচ্ছ পালকিতে, মা, চ’ড়ে
দরজা দুটো একটুকু ফাঁক ক’রে,
আমি যাচ্ছি রাঙা ঘোড়ার ‘পরে
টগবগিয়ে তোমার পাশে পাশে।
রাস্তা থেকে ঘোড়ার খুরে খুরে
রাঙা ধূলোয় মেঘ উড়িয়ে আসে।

সন্ধ্যে হল, সূর্য নামে পাটে,
এলেম যেন জোড়াদিঘির মাঠে।
ধূ ধূ করে যে দিক-পানে চাই,
কোনোখানে জনমানব নাই,
তুমি যেন আপন-মনে তাই
ভয় পেয়েছ-ভাবছ, ‘এলেম কোথা।’
আমি বলছি, ‘ভয় কোরো না মা গো,
ওই দেখা যায় মরা নদীর সোঁতা।’

আমরা কোথায় যাচ্ছি কে তা জানে-
অন্ধকারে দেখা যায় না ভালো।
তুমি যেন বললে আমায় ডেকে,
‘দিঘির ধারে ওই-যে কিসের আলো!’
এমন সময় ‘হাঁরে রে রে রে রে’

ওই – যে কারা আসতেছে ডাক ছেড়ে!
তুমি ভয়ে পালকিতে এক কোণে
ঠাকুর-দেবতা স্মরণ করছ মনে,
বেয়ারাগুলো পাশের কাঁটাবনে
আমি যেন তোমায় বলছি ডেকে,
‘আমি আছি, ভয় কেন, মা, করো!’

তুমি বললে, ‘যাস নে খোকা ওরে,’
আমি বলি, ‘দেখো-নাচুপ করে।’
ছুটিয়ে ঘোড়া গেলেম তাদের মাঝে,
কী ভয়ানক লড়াই হল মা যে
শুনে তোমার গায়ে দেবে কাঁটা।
কত লোক যে পালিয়ে গেল ভয়ে,
কত লোকের মাথা পড়ল কাটা।।

এত লোকের সঙ্গে লড়াই ক’রে,
ভাবছ খোকা গেলই বুঝি মরে।
আমি তখন রক্ত মেখে ঘেমে
বলছি এসে, ‘লড়াই গেছে থেমে,’
তুমি শুনে পালকি থেকে নেমে
চুমো খেয়ে নিচ্ছ আমায় কোলে
বলছ, ‘ভাগ্যে খোকা সঙ্গে ছিল’
কী দুর্দশাই হত তা না হলে!’

 

‘Birpurush Poem’ in English :

 

Birpurush Poem

 

just imagine mother, that you and i
are travelling far (can’t remember why)
your palanquin’s rocking to and fro
with four beheras going heiya-ho
besides them i am trotting along
on my little red pony, singing a song.

my hoof-dust clouds the end of day
thorn-bushes bleak in the low sun’s ray
it’s barren, barren, every which way
even the animals have gone away
imagine it’s dark: you can barely see
we’ve come to the wilds of joradighi

we are cutting through the fields of bramble
it’s nearly night, the beheras scramble
the path curves out a little ahead,
we are going over a dead river bed
in the plodding silence, you suddenly shout
“are those lights out there, moving about?”

just then the cry: “hare re re re re”
you can hear them charging; utter disarray
beheras running helter skelter
you pray to heaven for divine shelter
but i tell you calmly, “ma don’t worry!
i am here with you, now _they’ll be sorry!”

skins gleaming in the flickering light
twirling lthhis they come, a fearsome sight
i yell, “wait!”, and “stop right there!
beware my sword now, don’t you dare!
just one more step and your blood will spray!”
but they just explode with a “ha re re re re re”

you tell me, all trembling, “khoka, don’t go!”
i say, “ma, just watch.” and with a “heigh ho”,
i spur my horse into the villainous mass
their shields ring out on my cutlass
such a terrible battle, you’d swoon if i say
so many heads cut off, so many run away…

at the end you’re weeping, “my khoka is dead!”
just then i’m back, all sweaty blood-red.
i call out, “ma, it’s over, the fight!”
you come out then and hug me tight
you lift me to your lap with a kiss: “khoka dear,
what _would i have done, if you hadn’t been here!”

such useless things happen all the time
why can’t _this be true at least one time?
oh then it would be a real fairy tale
everyone would rave, though dada would rail:
“pah! how can this be? he isn’t even that strong!”
but neighbours would say, “lucky khoka went along!”

মন্তব্য
Loading...