সময়ের সাথে হাত মিলিয়ে

Advertisement

ব্লাউজহীন শাড়ি পরে সোশ্যাল মিডিয়ায় মিথিলা ! প্রবল সমালোচনা বাংলাদেশে

0

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্কঃ সোশ্যাল মিডিয়ায় স্বামী সৃজিত এবং মিথিলা দুজনেই নিজেদের মেলে ধরেন অনায়াসে । এমনকি ব্যাক্তিগত সময়ের ছবিও মাঝে মাঝে শেয়ার করতে দেখা যায় ভক্তদের মাঝে । কিন্তু এবার এমন একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করলেন সৃজিত পত্নী এবং বাংলাদেশের অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলা, যার জেরে বাংলাদেশের কট্টরপন্থীদের প্রবল সমালোচনার মুখে পড়তে হচ্ছে তাকে ।

সম্প্রতি সোশ্যাল মাধ্যম ফেসবুকে মিথিলা তাঁর নিজের একটি ছবি পোস্ট করেছেন । জীবনানন্দ দাশের ‘বনলতা সেন’ কবিতার ক্যাপশন দিয়ে যে ছবিটি তিনি শেয়ার করেছেন সেখানে দেখা যাচ্ছে, আবছা অন্ধকার একটি ঘরে বঙ্গবধূর সাজে তিনি দাঁড়িয়ে আছেন । নিজের পরনে কোন ব্লাউজ ছাড়াই একটি গাঢ় রংয়ের শাড়ি। ঘনকালো খোলা চুল তার সৌন্দর্য যেন বাড়িয়ে দিয়েছে। আর অন্ধকারের মধ্যেই এক চিলতে আলো এসে পড়েছে মিথিলার উপর। ছবির ক্যাপশনে কবি জীবনানন্দ দাশের বিখ্যাত কবিতা বনলতা সেনের শেষ দুটি লাইন ব্যবহার করেছেন সৃজিত ঘরনী- “সব পাখি ঘরে আসে— সব নদী— ফুরায় এ-জীবনের সব লেনদেন;থাকে শুধু অন্ধকার, মুখোমুখি বসিবার বনলতা সেন।”

সব পাখি ঘরে আসে— সব নদী— ফুরায় এ-জীবনের সব লেনদেন;থাকে শুধু অন্ধকার, মুখোমুখি বসিবার বনলতা সেন।~ জীবনানন্দ দাশ

Rafiath Rashid Mithila यांनी वर पोस्ट केले रविवार, २३ ऑगस्ट, २०२०

ছবিতে সৃজিত পত্নী মিথিলার সৌন্দর্য যেন ফুটে বের হচ্ছে । কিন্তু ব্লাউজ ছাড়া শাড়ি পরা অবস্থায় বাংলাদেশের কট্টরপন্থিরা সমালোচনা শুরু করেছেন । বেশ কিছু কট্টরপন্থী রীতিমত অশ্লীলভাষায় ব্যাক্তিগতভাবে তাকে আক্রমণ করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায় । এমন কি  এই ছবি পোস্ট করার জন্য ধর্ম নিয়েও শুনতে হয়েছে তাঁকে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই দাবী করেছেন ভারতের পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়কে বিয়ে করার পর মিথিলা নাকি বাংলাদেশের সংস্কৃতি ভুলে গেছেন ! কেউ দাবী করেছেন নিজের ধর্ম ত্যাগ করেছেন তিনি । আবার কেউ বা ব্লাউজহীন শাড়ি পরা দেখে কেউ লিখেছে, পোশাকের অভাব হয়েছে হয়তো অভিনেত্রীর !

বর্তমানে মিথিলা এবং সৃজিত একসাথেই আসেন । করোনা আবহের মধ্যে একমাত্র টেলি কলিং এবং সামাজিক মাধ্যম ছাড়া দুজনের দীর্ঘদিন দেখা সাক্ষাৎ হয়নি ।  অবশেষে সেই অপেক্ষার অবসান হয়েছে গত ১৫ অগাস্ট। মেয়েকে নিয়ে মিথিলা সেদিন ভারতে আসেন। দীর্ঘ ৫ মাস পর দেখা হয় স্বামী সৃজিতের সাথে ।

মন্তব্য
Loading...