সময়ের সাথে হাত মিলিয়ে

Advertisement

চীনকে বিশ্বাস করা বোকামির নামান্তর ! ফের বিশ্বাসভঙ্গ করে প্যাংগং-এ নির্মাণ কাজ

0

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্কঃ কোনভাবেই চীনকে বিশ্বাস করা বোকামির নামান্তর – সেটাই ফের প্রমানিত হতে চলেছে । এর আগে ভারত ছাড়াও সীমান্ত নিয়ে অশান্তি ছড়ানোয় চীনের দুর্নাম রয়েছে । এবার সম্প্রতি, একটি স্যাটেলাইট চিত্রে দেখা যায় যে প্যাংগং সো-এ চিনের সেনা নির্মাণ কাজ করছে। ভারতের সাথে কথা হয়ে যাবার পরেও এই নির্মাণ কাজ বিশ্বাস ভঙ্গের সামিল ।

লাদাখ সীমান্তে ভারত-চিনের সেনাদের মধ্যে মুখোমুখি রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর সীমান্তে উত্তেজনার পারদ ঊর্ধ্বমুখী । বারবার উচ্চপর্যায়ের আলোচনার পর সীমান্ত থেকে দুই দেশই সেনা পিছিয়ে নেবার সিদ্ধান্ত নেয় । কিন্তু কথা দিয়েও কথা রাখছে না চীন । ফের নিজের জাত চিনিয়ে দিল । সম্প্রতি স্যালেলাইট ইমেজে দেখা গেছে হটস্প্রিং থেকে সরে গেলেও নাছোড়বান্দা চিন এখনও অবস্থান করছে প্যাংগংয়ে। এমন কি চীনা সেনাদের নির্মাণ কাজ করার প্রমান পাওয়া গেছে ।

দক্ষিন চীন সাগরে শুরু হয়েছে নৌ মহড়া

উপগ্রহ ছবি থেকে জানা গেছে, যে প্যাংগং সো নিয়ে এত বিতর্ক, সেখানে চিনা সেনারা ফিঙ্গার ৫ এ ফিরে এসেছিল, তবে তারা এখনও ফিঙ্গার ৪-এর রিজলাইন দখল করে রয়েছে। চিনা সেনারা ফিঙ্গার ৪ থেকে আঙুলের ৮-এর মধ্যে ৮-কিলোমিটার দীর্ঘ এলাকাজুড়ে তাদের তৈরি কাঠামোগুলিকেই LAC বলে দাবি করে যাচ্ছে এখনও।

এদিকে ভারতীয় সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে রাফায়েলের মহড়া শুরু হয়েছে লাদাখ সীমান্তে ।  এছাড়া আগেই, ভারতীয়  মিগ ২৯ যুদ্ধবিমান আকাশে চক্কর কাটছে । এছাড়া উত্তর লাদাখে ভারত পি৮আই এয়ারক্রাফ্ট মোতায়েন করেছে। এই যুদ্ধবিমানগুলি সাবমেরিন প্রতিহত করতে সমর্থ। জানা গিয়েছে লাদাখে আরও অতিরিক্ত তিন ডিভিশন সেনা মোতায়েন করবে ভারত।

অন্যদিকে চীনের পক্ষ থেকে লাদাখ সীমান্তে  আরও ৪০০০০ অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করা হয়েছে ।  ভারত চিনের তিন দফায় সেনা সরানোর প্রক্রিয়ার উপর তীক্ষ্ণ নজর রাখছে ভারত। কোনও ভাবে যদি চিন সেই চুক্তি লঙ্ঘন করে তাহলে ভারতও থমকে যাবে। সেনা প্রত্যাহারের চুক্তি যাতে কোনও ভাবে লঙ্ঘন না করা হয় সেদিকে নজর রাখছে ভারতীয় সেনা। এর জন্য দিনের পাশাপাশি রাতেও বায়ুসেনার বিমান ও হেলিকপ্টর টহল দিচ্ছে লাদাখের সীমান্ত জুড়ে।

এদিকে দক্ষিন চীন সাগর নিয়ে ফের উত্তেজনা ক্রমশ বাড়ছে । সেখানে একের পর এক চীন বিরোধী নৌ মহড়া শুরু করেছে । সামিল হয়েছে, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, জাপান, ভারত । বাইরের দেশ গুলির আধিপত্য চীন সহজে স্বীকার করবে না বলেই ধরে নেওয়া হচ্ছে । ফলে সেখানেও শুরু হয়েছে উতপ্ত পরিস্থিতি ।

মন্তব্য
Loading...