পাকিস্তানে করোনা পরিস্থিতি ক্রমশ ভয়াবহ দিকে মোড় নিচ্ছে

0

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্কঃ ভারতের প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানে করোনা প্রভাব বিস্তার শুরু করেছে আরও দ্রুত । যেভাবে প্রতি দিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণের হার তাতে অনেকেই সিঁদুরে মেঘ দেখছেন । এই মুহূর্তে পাকিস্তানে সরকারীভাবে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ২৮১৮ জন এবং মারা গেছেন মোট ৪১ জন ।

গত একমাসে পাকিস্তানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা যেভাবে বেড়েই চলেছে তাতে আশঙ্কা করা হচ্ছে, অচিরেই পাকিস্তানের পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ আকার ধারন করবে । পাকিস্তানে ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ সপ্তাহে মাত্র দুই জনের শরীরে করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া যায় ।  মার্চের দ্বিতীয় সপ্তাহের শেষে সেই সংখ্যা দাঁড়ায় ৩৩ । কিন্তু তার দুই সপ্তাহ পর পাকিস্তানের করোনা সংক্রমণের চিত্র পাল্টে গেছে । বর্তমানে পাকিস্তানে করোনা পজিটিভ ৩০০০ ছুই ছুই ।

এদিকে প্রথম দিকে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান করোনা মোকাবিলায় লকডআউনকে হালকাভাবে নিয়েছিলেন । এমন কি ভারতেরর প্রধান মন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা নিয়েও হালকা কটাক্ষ করতে দেখা যায় তাঁকে । কিন্তু গত দুই সপ্তাহের পরিস্থিতি ইমরান খানকে ফেলে দিয়েছে চাপের মুখে ।

পাকিস্তানের করোনা পরিস্থিতি পর্যালোচনা করলে দেখা যাচ্ছে সেখানে সবচেয়ে বেশী আক্রান্ত হয়েছেন পাঞ্জাবে । সংখ্যাটা ১১৩১ জন । পাঞ্জাবের পরেই আছে সিন্ধু প্রদেশ । পাক প্রধান মন্ত্রী ইমরান খান ইতিমধ্যে পাকিস্তানে যে কোন জমায়েতের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে । যদিও অনেক জায়গাতেই সরকারী নিষেধাজ্ঞাকে থোরাই কেয়ার করছে পাক জনগণ ।

এদিকে ভারতের করোনা পরিস্থিতিও বেশ উদ্বেগজনক হয়ে পড়ছে । এশিয়ার সবচেয়ে বড় বস্তি এলাকা মুম্বইয়ের ধারাভিতে গতকাল আরও দুই জনের শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে । এই নিয়ে ১লা এপ্রিল থেকে এখনও পর্যন্ত মোট ৫ জনের শরীরে করোনা পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে ।

রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি  মোটামুটি সুবিধাজনক অবস্থায় থাকলেও কিছু সাধারন মানুষের কারনে যে কোন সময় পরিস্থিতির আমূল পরিবর্তন ঘটতে পারে । রাজ্যের প্রায় সব জায়গায় বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলের দিকে এখনও সাধারন মানুষ লকডাউনকে হালকা ভাবে নিচ্ছে । সামান্য প্রয়োজনে কিম্বা বিনা প্রয়োজনেও মানুষকে রাস্তায় বের হতে দেখা যাচ্ছে । করোনার মত একটি মারণ ব্যাধি মোকাবিলায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ছাড়া এই মুহূর্তে কোন বিকল্প পথ নেই বারংবার প্রচার করা সত্ত্বেও বাজার, হাঁট, চায়ের দোকান, রেশনের লাইনে সামাজিক দূরত্বের থোড়াই কেয়ার করছেন ।

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
মন্তব্য
Loading...