মোদীকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে কংগ্রেসের ‘দেশ কি বাত’ শুরু হতে চলেছে আজ থেকেই

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্কঃ যুগের সাথে তাল মিলিয়ে নরেন্দ্র মোদী শুরু করেছিলেন ‘মন কি বাত‘ । এবার ‘মন কি বাত’-এর পাল্টা চ্যালেঞ্জ ‘দেশ কি বাত’ চালু করতে চলেছে জাতীয় কংগ্রেস ।

এখন মানুষের ভালো লাগা বা মন্দ লাগা, নিজের মনের কথা বা অভিব্যাক্তি কিম্বা প্রতিবাদের ভাষা প্রকাশ করার সবচেয়ে ভাল প্লাটফর্ম সোশ্যাল মিডিয়া । প্রধান মন্ত্রী বিশ্বের অন্যান্য রাষ্ট্র নায়কের মত সেই জোয়ারে গা ভাসিয়েছেন অনেক দিন আগেই । একটু দেরিতে হলেও ভারতের বিরোধী দলগুলি সেই জোয়ারে গা ভাসাতে চাইছেন সুদিনের আশায় । ঠিক এই কারনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বেতার কথার ‘মন কি বাত’-এর পাল্টা কংগ্রেসের ‘দেশ কি বাত’ দিয়ে  পাল্টা সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করে নতুন প্রচার শুরু করছে কংগ্রেস ।

জানা গেছে, ‘দেশ কি বাত’-এর  প্রথম পর্ব হবে আজ শনিবার সকাল ১১টা থেকে ।অনুষ্ঠানে বলবেন সর্বভারতীয় কংগ্রেসের অন্যতম মুখপাত্র পবন খেরা । কংগ্রেসের সোশ্যাল মিডিয়া সেলের প্রধান রোহন গুপ্তা বলেছেন, “দেশ কি বাত থেকে সাধারণ মানুষের প্রতিদিনকার জীবনের জ্বলন্ত সমস্যাগুলিকে তুলে ধরা হবে । প্রশ্ন তোলা হবে সরকারের অর্থনৈতিক ব্যর্থতা নিয়ে । প্রতিশ্রুতি পূরণ না করা, অপরাধের সংখ্যাবৃদ্ধি, বেকারত্ব, মূল্যবৃদ্ধির মতো ইস্যুগুলিকেই আরও বেশি অংশের মানুষের কাছে তুলে ধরা হবে ।”

সবে মাত্র শেষ হল মহারাষ্ট্র এবং হরিয়ানার বিধানসভা ভোট । ভোটের ফলের আগেই বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম বুথ ফেরত সমীক্ষায় জানিয়েছিল গতবারের থেকেও ভাল ফল করে ক্ষমতা দখল করবে বিজেপি । কিন্তু ভোটের ফল প্রকাশের পর দেখা যায়,  দুই রাজ্যের ভোটের ফলে বুথ ফেরত সমীক্ষাকে ভুল প্রমানিত করে বিক্রমের সাথে ফিরে এসেছে কংগ্রেস । এই দুই রাজ্যের বিধানসভা ভোটের রেজাল্টে কিছুটা অক্সিজেন পেয়েছে সাবেক জাতীয় দল । দলের এক নেতার কথায়, “আমাদের সমর্থন বৃদ্ধি প্রমাণ করছে, মানুষ আবার কংগ্রেসের প্রতি বিশ্বাস রাখছে।” তিনি আরও বলেছেন, “মূল ধারার সংবাদমাধ্যম কংগ্রেসের এই খবর প্রচার করবে না বলেই সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করা হচ্ছে।”

কংগ্রেস নেতৃত্বের বক্তব্য, “দেশের দায়িত্বশীল বিরোধী দল হিসেবে কংগ্রেস সাধারণ মানুষের এই ইস্যুগুলিতে সোচ্চার হবে। প্রতিটি এপিসোডে একজন করে মুখপাত্র বলবেন।”

দেরিতে হলেও জাতীয় কংগ্রেস বুঝতে পেরেছে সোশ্যাল মিডিয়া ছাড়া খুব দ্রুত তাদের কথা সাধারন মানুষের মধ্যে প্রচার করা যাবে না । এই কারনে  ‘দেশ কি বাত’-এর সূচনা ।   সন্দেহ নেই সারা দেশের সামনে নাম না জানা কংগ্রেসি নেতাদের পরিচিত করার ক্ষেত্রেও এই প্রচারপর্ব সাহায্য করবে । এর আগে কংগ্রেস নেতা সন্দীপ দীক্ষিত মন কি বাতের পাল্টা কাম কি বাত শুরু করেছিলেন। কিন্তু সেটা মাঝ পথে বন্ধ হয়ে যায়। এবার দেশ কি বাতকে নিয়মিত করতে বদ্ধপরিকর কংগ্রেস।

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
মন্তব্য