চাল ধোয়া জল দিয়ে ত্বকের পরিচর্যা ! শুনেছেন কখনও

0

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্কঃ কথায় বলে মাছে-ভাতে বাঙ্গালী । বেশিরভাগ বাঙ্গালীর পছন্দের খাবার ভাত । ভাত ছাড়া বাঙ্গালী – এই কথা চিন্তা করাই অন্যায় । দেশ ছেড়ে বাঙ্গালী যেখানেই যাক না কেন, ভাতের খোঁজ করবেই করবে । অথচ ভাত রান্না করতে গেলে যে চাল লাগে, সেই চাল ধোয়া জল দিয়ে খুব সুন্দরভাবে ত্বকের পরিচর্যা করা যায় ।

উপকরণ বলতে খুবই সামান্য ও সহজলভ্য সাধারণ চাল ধোওয়া জল। বেশিরভাগ সময়েই চাল ভিজিয়ে রাখার পর জলটুকু ফেলে দেওয়া হয়। কিন্তু ওর মধ্যেই রয়েছে আপনার ঘন, কালো, স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুলের চাবিকাঠি। চুলের যত্নে যে কয়েকটি প্রাচীন ঘরোয়া পদ্ধতি রয়েছে, তাদের মধ্যে অন্যতম এই চাল ধোওয়া জলের ব্যবহার। বিশেষ করে চিন ও জাপানে চাল ভেজানো জল দিয়ে চুল ধোওয়াটা প্রাচীন রীতি। হ্যাঁ, ভাত রান্না করার সময় চাল ধুয়ে যে জল আমরা ফেলে দেই সেই জল দিয়েই ত্বকের পরিচর্যা বিশেষ করে ব্রন, ফুসকুড়ি এবং চুলের যত্নে বিশেষ কাজে লাগান যায় । কিভাবে এগুলি করা যায় জেনে নিন –

ভাতের বিকল্প হিসাবে বাঙ্গালীদের মধ্যে অনেকেই রুটি বা ওই জাতীয় খাবার বেছে নিতে বাধ্য হচ্ছেন চিকিৎসকের পরামর্শ মানতে গিয়ে । আবার শরীরের ডায়েট ঠিক রাখার জন্য বর্তমান যুগে অনেক বাঙ্গালীই ভাতের পরিমাণ কমিয়ে দিচ্ছেন । কিন্তু ভাত নয়, চালের জল বা চাল ধোয়া জল দিয়েই ত্বক আর চুলের পরিচর্যায় বাজিমাত করা যায় ।

ত্বক ও চুলের পরিচর্যায় চাল ধোয়া জলের ব্যবহারঃ-

  • চুলের ময়লা ও মলিনতা দূর করতে চাল ধোয়া জল কার্যকরী ভুমিকা নেয় । সেক্ষেত্রে চাল ধোয়ার পর সেই জল দিয়ে চুল ভাল করে ধুয়ে ফেলতে হবে । এতে একদিকে চুলের গোঁড়া যেমন মজবুত হয়, তেমনি ময়লা দূর হয়ে চুল হয় চকচকে ।
  • শ্যাম্পু করার পর চাল ধোয়া জল দিয়ে চুল ধুলে চুলের ডগা ফাটার সমস্যা দূর হয় । সেক্ষেত্রে, চাল ধোয়া জল দিয়ে চুল ৩/৪ মিনিট ভিজিয়ে রাখতে হয় ।
  • স্নান করার সময় চাল ধোয়া জল ব্যবহার করলে ত্বকের মধ্যে অস্বস্তিকর জ্বালা, চুলকানি থেকে সহজেই মুক্তি পাওয়া যায়।
  • মুখে অনেকেই ব্রণ সমস্যায় ভোগেন । ব্রন সমস্যায় মুক্তি পেতে একবার চাল ধোয়া জল ব্যবহার করে দেখতে পারেন । কিভাবে ব্যবহার করবেন !  চাল ধোয়া জল ঠাণ্ডা করে তুলোর সাহায্যে লাগান ব্রণ আক্রান্ত স্থানে। দিনে ২-৩ বার ব্যবহার করলেই তফাৎ বুঝতে পারবেন।
  • অনেক সময় অত্যাধিক সূর্যের তাপে ত্বক পুড়ে যায়, সৃষ্টি হয় ট্যানের । পুড়ে যাওয়া জায়গাগুলোতে ঠাণ্ডা চাল ধোয়া জল লাগালে চলে যায় ট্যান। একইসঙ্গে বাড়বে ত্বকের উজ্জ্বলতা।

 

আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
মন্তব্য
Loading...