সময়ের সাথে হাত মিলিয়ে

Advertisement

কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী হাসপাতালে ভর্তি, উপসর্গ প্রবল শ্বাসকষ্ট

0

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্কঃ দেশজুড়ে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারন করছে । এরই মাঝে এবার অসুস্থ হয়ে পড়লেন কংগেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী । গতকাল প্রবল শ্বাসকষ্টজনিত কারনে সন্ধ্যা সাতটা নাগাদ দিল্লির স্যার গঙ্গারাম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এই মুহূর্তে কংগ্রেসের সময় খুব ভাল যাচ্ছে না বলা চলে । মাত্র একদিন হল, প্রদেশ কংগেস সভাপতি সোমেন মিত্র ৭৭ বছর বয়সে মারা গেলেন । এবার কংগেস সুপ্রিমো সোনিয়া গান্ধীর শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি দলের চিন্তা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে । তবে দিল্লির স্যার গঙ্গারাম হাসপাতালের চিকিৎসক এবং চেয়ারম্যান (পরিচালনা পর্ষদ), ডঃ ডি এস রানা  বলেছেন যে, বর্তমানে তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে।

চলতি বছরে ফেব্রুয়ারি মাসে সোনিয়া গান্ধী অসুস্থতার কারনে এই একই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন । সেবার কংগ্রেস সভানেত্রীর পেটে ব্যাথার মত উপসর্গ দেখা গিয়েছিল । বৃহস্পতিবার বুলেটিনেই জানানো হয়েছে যে সোনিয়া গান্ধীকে দিল্লির হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে, সন্ধ্যা ৭ টার সময়।তিনি সেখানে  ডঃ অনুপ কুমার বসুর চিকিৎসাধীন রয়েছেন । হাসপাতালে চিকিৎসক বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, শ্বাসকষ্টের জন্য তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার সাধারণ রুটিন টেস্ট করা হয় হাসপাতালে, কিন্তু এখন বর্তমানে তিনি সুস্থ আছেন।

উল্লেখ্য, অসুস্থতার কারনে সোনিয়া গান্ধী ২০১৭ সালে সভাপতির পদ ছেড়ে দেন ।   তারপরেই তার ছেলে রাহুল গান্ধী সেই পদের দায় ভার সামলান, কিন্তু ২০১৯ এর লোকসভা ভোটে গোহারা হারায়, রাহুল গান্ধীও পদ থেকে  সরে দাঁড়ান, ফলে  ফের বাধ্য হয়ে সোনিয়া গান্ধীকেই সেই সভাপতি পদ সামলাতে হয়।

ফলে সোনিয়া গান্ধীর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ায় কংগ্রেসকে বেশ চিন্তায় ফেলেছে । গত বৃহস্পতিবারে সোনিয়া গান্ধী দলের দলের রাজ্যসভা সদস্যদের সব নেতাদের সাথে বৈঠক করেন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে, সেই ভিডিও কনফারেন্সে ছিল সেদিন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, রাজ্যসভায় বিরোধী দলনেতা গোলাম নবী আজাদ, কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক কেসি ভেনুগোপাল, সিনিয়র নেতা আহমেদ প্যাটেল, দিগ্বিজয় সিং, জয়রাম রমেশ এবং রাজ্যসভার অনেক সদস্য । এই বৈঠকে মূলত করোনার মহামারী সম্পর্কিত পরিস্থিতি, রাজস্থানের রাজনৈতিক সঙ্কটের প্রেক্ষাপটে বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি, লাদাখে চীনের সাথে অচলাবস্থা এবং অর্থনীতির স্থিতি নিয়ে মুখ্য আলোচনা হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

মন্তব্য
Loading...