সময়ের সাথে হাত মিলিয়ে

Advertisement

মিয়া খলিফার মত আরেকজন পর্ণ স্টার অ্যাঞ্জেলা হোয়াইট

0

বং দুনিয়া ওয়েব ডেস্ক: মিয়া খলিফার মত সারা বিশ্ব জাগানো পর্ণ স্টার অ্যাঞ্জেলা হোয়াইট। পর্ন চলচ্চিত্রের একজন অস্ট্রেলিয়ান অভিনেত্রী ও পরিচালক। ২০০৩ সালে প্রাপ্তবয়স্ক চলচ্চিত্রে তার যাত্রা শুরু। অ্যাঞ্জেলা হোয়াইটকে এডিএন হল অফ ফেমে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এডিএন এর মহিলা পারফরমার অফ দ্য ইয়ার অ্যাওয়ার্ডের দুবারের বিজয়ী অ্যাঞ্জেলা।

১৯৮৮ সালের ৪ মার্চ অস্ট্রেলিয়ার সিডনীতে জন্মগ্রহণ করেন অ্যাঞ্জেলা হোয়াইট। ১৮ বছরে যখন অ্যাঞ্জেলা তখন প্রাপ্ত বয়স্ক চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন। ২০০৭ সালে অ্যাঞ্জেলা হোয়াইট স্কোর ম্যাগাজিনের বছরের সেরা মডেল নির্বাচিত হয়েছিলেন। হোয়াইট ২০১১ ছেলে মেয়ের দৃশ্য তৈরি করেছিলেন নাম দিয়েছিলেন Angela White Finally Fucks. ২০১৩ সালে অ্যাঞ্জেলা হোয়াইট আনুষ্ঠানিক ভাবে তার ওয়েবসাইট angelawhite.com চালু করেন। ২০১৪ সালে অ্যাঞ্জেলা হোয়াইট এবং জেসা রোডসকে এক্সবিআইজেড পুরস্কারের জন্য অফিশিয়াল ট্রফি গার্লস দেওয়া হয়। ২০১৪ সালের অক্টোবর মাসে হোয়াইট তার ছবিগুলো প্রকাশের জন্য গার্লফ্রেন্ডসের সাথে চুক্তিতে সই করেন। তার ছবিগুলোর পর্ন জগতের জন্য ব্যাতিক্রমি ছবি বলা হয়। তিনিই প্রথম অস্ট্রেলিয়ান যে ফিলিশলাইট গার্ল হিসাবে নাম ঘোষণা করেন।

২০১৪ সালের জানুয়ারিতে এএনএন-এর সাথে একটি সাক্ষাত্কারে হোয়াইট কীভাবে ওয়েব ক্যামের মাধ্যমে ভক্তদের সাথে সংযোগ উপভোগ করেছিলেন তা নিয়ে আলোচনা করেছিলেন। অ্যাঞ্জেলা বলেছিলেন যে, তিনি অনুভব করেছেন যে পাইরেসির সাথে জড়িত ইস্যুগুলি সম্পর্কে প্রাপ্তবয়স্ক শিল্পটি সরাসরি শোয়ের দিকে এগিয়ে যাবে। শিক্ষা জীবনে অ্যাঞ্জেলা হোয়াইট পিছিয়ে থাকেন নি ২০০৭ সালে হোয়াইট মেলবোর্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আর্টস ব্যাচেলর প্রোগ্রামে ভর্তি হন। তিনি ২০১০ সালে জেন্ডার স্টাডিতে প্রথম শ্রেণির সম্মান সহ স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন। অনার্স থিসিসের জন্য তিনি অস্ট্রেলিয়ান পর্নোগ্রাফি শিল্পের মহিলা অভিজ্ঞতা সম্পর্কে গুণগত গবেষণা পরিচালনা করেছিলেন। ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে প্রকাশিত তার থিসিসের অনুসন্ধানগুলি যৌনতাতে “দ্য পর্ন পারফর্মার” শিরোনামে প্রকাশিত হয়েছিল। হোয়াইট তার শিক্ষা জীবন নিয়ে বলেছেন যে তিনি তার অভিনয়শক্তির বিস্তৃত ক্রস বিভাগকে অন্তর্ভুক্ত করতে তার পড়াশোনাটি আরও প্রসারিত করতে চান।

২০১০ সালে, হোয়াইট ভিক্টোরিয়ান রাজ্য নির্বাচনে অস্ট্রেলিয়ান সেক্স পার্টির রাজনৈতিক প্রার্থী হিসাবে অংশ নিয়েছিলেন। যেখানে তিনি যৌনকর্মীদের অধিকারের জন্য লড়াই করেছিলেন। নির্বাচনের সময় তিনি এক্স-রেটড ফিল্মগুলির নিয়মকানুন হ্রাস করার জন্য অ্যাটর্নি জেনারেল রব হালসের কাছে তার ডিভিডিগুলির অনুলিপি প্রেরণ করেন। ২০১৩ সালে হোয়াইট এবং সহযোগী অস্ট্রেলিয়ান সেক্স পার্টির প্রার্থী জহরা স্টারডস্ট প্রথম রাজনৈতিক প্রার্থী হয়ে একসঙ্গে অশ্লীল দৃশ্যের চিত্রায়ণ করেছেন। অ্যাঞ্জেলা হোয়াইট তার অভিনীত ছবিগুলো তার নিজের নামের সাথেই মিল রেখে নামকরণ করেন। ২০১৪ সালে তার অভিনীত সিনেমার নাম 2014 Angela। একইভাবে ২০১৫ সালের অ্যাঞ্জেলার চারটি ছবির নাম Angela Loves Woman এর মত। অ্যাঞ্জেলা হোয়াইট এ পর্যন্ত ২০১৬ ও ২০১৭ সালে তিনটি করে ছয়টি এওয়ার্ড পান। ২০১৮ সালে ১৪টি এওয়ার্ড পান। ২০১৯ সালে ১০টি এওয়ার্ড পান। অ্যাঞ্জেলা ২০১৬ থেকে ১৯ সাল পর্যন্ত ১০ টি XRCO এওয়ার্ড পান। ২০১৫ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ৭টি XBIZ এওয়ার্ড পান। ২০১৬ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত ৬টি NightMovies Award পান। অ্যাঞ্জেলা হোয়াইটের অ্যাওয়ার্ডের ঝুলিটি বেশ বড়।  তবে অ্যাঞ্জেলা হোয়াইট পর্ন দুনিয়ায় মিয়া খলিফার মত হঠাত আবিভূত নন। যেখানে মিয়া খলিফা পর্ন দুনিয়া থেকে সরে যাওয়ার নিজের আগের জীবন সম্পর্কে বিড়ম্বিত। সেখানে অ্যাঞ্জেলা তার রাজনীতি সহ লেখাপড়ায় এগিয়েছেন পর্নকে নিয়ে।

মন্তব্য
Loading...