অনেক লোক ওজন কমানোর চেষ্টা ছেড়ে দেয় কারণ ডায়েট তাদের কী খেতে পারে এবং কী খাবে না সে সম্পর্কে কঠোর নিয়ম মেনে চলতে বাধ্য করে; তাদের প্রায়শই ক্যালোরির সংখ্যা কমাতে যতটা সম্ভব কম খেতে বলা হয়। এটি তাদের বঞ্চিত এবং নিরুৎসাহিত বোধ করতে পারে এবং শীঘ্রই দীর্ঘমেয়াদী ডায়েট বজায় রাখা কঠিন হয়ে পড়বে। একটি ভাল ওজন কমানোর খাদ্য খাদ্য বঞ্চনার উপর ভিত্তি করে করা উচিত নয়। আসলে, আপনি স্বাভাবিক “ঘরের খাবার” খেয়ে ওজন কমাতে পারেন এবং আপনার জীবনের প্রতিটি দিন কিছু করতে পারেন! এই নিবন্ধে, আমরা 10টি ওজন কমানোর টিপস তালিকাভুক্ত করেছি যা আপনি সর্বদা অনুসরণ করতে পারেন!

1. একটি ভাল ব্রেকফাস্ট দিয়ে দিন শুরু করুন:

যদিও রুটি, জ্যাম এবং প্যাকেটজাত সিরিয়ালগুলি প্রাতঃরাশের সুবিধাজনক বিকল্প, সেগুলিতে চিনি এবং ক্যালোরি বেশি থাকে। সকালের নাস্তায় চায়ের সাথে পাউরুটি বা বিস্কুটের মতো মিষ্টি খাবারের পরিবর্তে, ভারতীয় বিকল্পগুলি যেমন পোহা, ইডলি/দোসা ইত্যাদি ব্যবহার করে দেখুন। এগুলো শুধু সুস্বাদু, পুষ্টিকর, স্বাস্থ্যকরই নয়, ওজন কমাতেও সাহায্য করে। এই মত আরো ওজন কমানোর বন্ধুত্বপূর্ণ প্রাতঃরাশ ধারনা আবিষ্কার করুন রতি বিউটি অ্যাপে।

2. প্রতিটি খাবারের সাথে শাকসবজির একটি অংশ রাখুন:

প্রতি খাবারের সাথে কিছু শাকসবজি থাকা নিশ্চিত করুন! এগুলিতে ক্যালোরি কম, এগুলি আপনার শরীরের কাজ করার জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টিতে সমৃদ্ধ, এবং এগুলি আপনাকে তৃপ্ত বোধ করে যাতে আপনি ক্ষুধার্ত না হন৷ প্রতিটি খাবারের সাথে শাকসবজি খাওয়া ওজন কমানোর এবং সুস্থ থাকার একটি দুর্দান্ত উপায়। আপনার ওজন কমানোর লক্ষ্যে পৌঁছাতে এবং ভাল বোধ করতে আপনার সকালের নাস্তা, দুপুরের খাবার এবং রাতের খাবারে শাকসবজি যোগ করার চেষ্টা করুন!

3. প্রতিদিন কমপক্ষে 30 মিনিট হাঁটুন:

হাঁটা এমনই একটি নিম্নমানের ব্যায়াম। হাঁটা আপনার স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ভালো। এটি একটি সহজ ব্যায়াম যা যে কেউ করতে পারে। ধারণাটি আরও শারীরিকভাবে সক্রিয় হওয়া, আপনার শরীরকে সচল রাখা। আপনি যখন সক্রিয় থাকেন, তখন আপনার শরীর শক্তির জন্য ক্যালোরি পোড়ায়, যা সময়ের সাথে সাথে ওজন হ্রাস করতে পারে। নিয়মিত শারীরিক ক্রিয়াকলাপ আপনার বিপাককেও বাড়িয়ে তোলে, যা ক্যালোরি বার্ন করার জন্য আপনার শরীরের ইঞ্জিনের মতো। এর মানে হল আপনি ব্যায়াম না করলেও আপনি আরও ক্যালোরি পোড়ান। সুতরাং, নিশ্চিত করুন যে আপনি প্রতিদিন কমপক্ষে 30 মিনিট হাঁটছেন, এবং সময় বাড়ান বা আশ্চর্যজনক সুবিধাগুলি দেখতে প্রতিদিন 10,000 ধাপ হাঁটার চেষ্টা করুন।

4. প্রতিটি খাবারে একটি প্রোটিন উত্স অন্তর্ভুক্ত করুন:

আপনি যদি ওজন কমানোর চেষ্টা করছেন, তবে প্রতিটি খাবারে প্রোটিনের উত্স অন্তর্ভুক্ত করতে ভুলবেন না। প্রোটিন আপনাকে পূর্ণ বোধ করতে সাহায্য করে, এটি অন্যান্য পুষ্টির তুলনায় বেশি ক্যালোরি পোড়াতে তাপীয় প্রভাব ফেলে, এটি পেশী তৈরি ও মেরামত করতে সহায়তা করে এবং আপনার বিপাককেও বাড়িয়ে তোলে, অতিরিক্ত পাউন্ড প্রতিরোধ করে। এটি কমানো সহজ হয়ে যায়।

5. অতি-প্রক্রিয়াজাত খাবার কমিয়ে দিন:

প্যাকেজড স্ন্যাকস, ফাস্ট ফুড, বার্গার, পিৎজা এবং জাঙ্ক ফুডের মতো অতি-প্রক্রিয়াজাত খাবার থেকে বিরত থাকা অনেক উপায়ে আপনার স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে পারে। এই খাবারগুলিতে প্রায়শই চিনি, অস্বাস্থ্যকর চর্বি বেশি থাকে এবং এতে কৃত্রিম উপাদানও থাকতে পারে যা স্বাস্থ্য সমস্যা এবং ওজন বাড়াতে পারে। পরিবর্তে, আপনার ডায়েটে আরও সম্পূর্ণ এবং ন্যূনতম প্রক্রিয়াজাত খাবার যেমন ফল, শাকসবজি, গোটা শস্য, চর্বিহীন প্রোটিন এবং স্বাস্থ্যকর চর্বি অন্তর্ভুক্ত করা উচিত।

6. চিনিযুক্ত পানীয় হ্রাস করুন:

আপনার ওজন কমানোর যাত্রায় সাহায্য করার জন্য, চিনিযুক্ত পানীয় এবং খাবার কমানো গুরুত্বপূর্ণ। এই জিনিসগুলি প্রায়শই উচ্চ ক্যালোরি থাকে এবং ওজন বৃদ্ধিতে অবদান রাখতে পারে। পরিবর্তে, জল, সবুজ চা, কালো কফি ইত্যাদির মতো স্বাস্থ্যকর পানীয়ের বিকল্পগুলি বেছে নিন। এই ছোট পরিবর্তনগুলি করে আপনি অনেক ক্যালোরি কমাতে পারেন এবং শেষ পর্যন্ত ওজন কমাতে পারেন।

7. নিয়মিত যোগব্যায়াম অনুশীলন করুন:

ওজন কমানোর জন্য নিয়মিত যোগব্যায়াম অনুশীলন করা বিভিন্ন উপায়ে উপকারী হতে পারে। প্রথমত, যোগব্যায়াম শরীরকে টোন করতে এবং মেটাবলিজম বাড়াতে সাহায্য করে, তাই আপনি ব্যায়াম না করলেও ক্যালোরি পোড়াতে পারেন। উপরন্তু, যোগব্যায়াম মানসিক চাপের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য একটি কার্যকরী হাতিয়ার, যা মানসিক খাওয়া এবং অস্বাস্থ্যকর খাবারের লোভ কমাতে সাহায্য করতে পারে। এছাড়াও পড়ুন: “ব্যস্ত মেয়েদের জন্য 15 ওজন কমানোর টিপস।”

8. ধীরে ধীরে চিবান, বিভ্রান্তি ছাড়াই খান:

ধীরে ধীরে চিবানো এবং বিভ্রান্তি ছাড়াই খাওয়া মননশীলতা বাড়ায় এবং আপনাকে শরীরের পূর্ণতার সংকেত চিনতে সাহায্য করে। আপনি যখন ধীরে ধীরে চিবিয়ে খান, তখন আপনি আপনার শরীরকে পূর্ণতার অনুভূতি নিবন্ধনের জন্য আরও সময় দেন। এটি আপনার মস্তিষ্ককে আপনার পেট থেকে সংকেত পেতে দেয় যে আপনি যথেষ্ট পরিমাণে খেয়েছেন, অতিরিক্ত খাওয়ার সম্ভাবনা হ্রাস করে। উপরন্তু, ধীরে ধীরে চিবানো খাবারকে আরও কার্যকরভাবে ভাঙ্গতে সাহায্য করে, হজমে সহায়তা করে এবং পুষ্টির আরও ভাল শোষণ করে। টিভি দেখা বা আপনার ফোনে স্ক্রোল করার মতো কোনও বিভ্রান্তি ছাড়াই শান্তিপূর্ণভাবে খান, কারণ আপনি যখন বিভ্রান্ত হন, তখন আপনি সম্ভবত বিবেকহীনভাবে খেতে পারেন এবং আপনার শরীরের ক্ষুধা এবং পূর্ণতার সংকেত উপেক্ষা করতে পারেন।

9. আরও H2O পান করুন:

আমরা আগেই বলেছি, জল হল জীবনের অমৃত! আসলে, খাবারের আগে জল পান করা আপনাকে পূর্ণ বোধ করতে এবং আপনার ক্ষুধা কমাতে সাহায্য করতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে যে খাবারের আগে পানি পান করা খাবারের সময় ক্যালোরি খরচ কমাতে পারে। উপরন্তু, হাইড্রেটেড থাকা শরীরের ফাংশন এবং শক্তিশালী বিপাক মসৃণ কাজ করার জন্য অপরিহার্য। অন্যদিকে, ডিহাইড্রেশন আপনার বিপাককে ধীর করে দিতে পারে, ওজন হ্রাস করা কঠিন করে তোলে।

10. সাপ্তাহিক ওজন:

সাপ্তাহিক ভিত্তিতে আপনার ওজন পরীক্ষা করা আপনাকে আপনার ওজন কমানোর লক্ষ্যগুলির প্রতি দায়বদ্ধ থাকতে সাহায্য করবে। সাপ্তাহিক ভিত্তিতে আপনার ওজন ট্র্যাক করে, আপনি আপনার খাদ্য এবং ব্যায়ামের রুটিনে সামঞ্জস্য করতে এবং প্রয়োজনীয় পরিবর্তন করতে পারেন।

পরিশেষে, ওজন হ্রাস অর্জন এবং বজায় রাখার জন্য একটি স্বাস্থ্যকর এবং সুষম খাদ্য এবং জীবনযাত্রার পরিবর্তন প্রয়োজন যা আপনি দীর্ঘমেয়াদে ধরে রাখতে পারেন। উত্সর্গ, ধৈর্য এবং ধারাবাহিকতার সাথে, আপনি আপনার ওজন কমানোর লক্ষ্যগুলি অর্জন করতে পারেন এবং একটি স্বাস্থ্যকর এবং উপযুক্ত জীবন উপভোগ করতে পারেন।

ব্যস্ত মেয়েদের জন্য 15টি ওজন কমানোর টিপস
স্বাস্থ্যকর খাবার খেলেও ওজন কমছে না, জেনে নিন কেন

10টি ওজন কমানোর টিপস যা আপনি সর্বদা অনুসরণ করতে পারেন তা প্রথমে bongdunia.com-এ হাজির।

Tapas Saha is a guest Content and news writer at BongDunia. He has worked with several newspapers in the last 10 years. He has completed his graduation from Calcutta University. His mail id is [email protected].

Leave A Reply