সংগৃহীত ছবি

ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ গোষ্ঠী হামাস গাজা উপত্যকায় এক মাসব্যাপী যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হতে চলেছে। তবে, হামাস দাবি করছে যে এই অস্থায়ী যুদ্ধবিরতির শর্তগুলি একটি স্থায়ী যুদ্ধবিরতি হবে যার আলোকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কাতার এবং মিশরকে আশ্বাস দিতে হবে।

গাজায় কয়েক সপ্তাহ ধরে যুদ্ধবিরতির চেষ্টা চলছে। তবে শর্তগুলো নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে মতানৈক্য রয়েছে। ইসরাইল এর আগে দুই মাসের যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব দিয়েছিল। এতে বলা হয়েছে, ইয়াহিয়া সিনওয়ার, মোহাম্মদ আল-দীফসহ হামাসের ছয় সিনিয়র নেতাকে গাজা ছেড়ে অন্য কোথাও যেতে হবে। কিন্তু হামাস তা প্রত্যাখ্যান করেছে।

হামাস স্থায়ী যুদ্ধবিরতির ওপর জোর দিচ্ছে। তারা বিশ্বাস করে যে বেসামরিক নাগরিকদের ছেড়ে দেওয়া হলে ইসরাইল আরও মারাত্মক হামলা চালাবে। এমনকি যারা সেনাবাহিনীর বন্দী তাদেরও কোনো পার্থক্য হবে না।

এর বাইরে হামাস ইসরায়েলের হাতে আটক সব ফিলিস্তিনিদের মুক্তির দাবি করছে। ৭ অক্টোবর হামলার সময় যারা আটক হয়েছিল তাদের মুক্তির দাবিও করছেন তারা। কিন্তু ইসরায়েল এতে একমত হবে বলে মনে হয় না।

হামাস মনে করে ইসরাইল এখনো যুদ্ধবিরতি চায় না। খান ইউনিসে তাদের অভিযান শেষ হলেই তারা যুদ্ধ বন্ধ করতে চায়।

হামাসের গাজায় এখনো ১৩২ জন বন্দী রয়েছে। তবে, ইসরায়েল বিশ্বাস করে যে তাদের মধ্যে 28 জন মারা গেছে।

গতকাল গাজা যুদ্ধে সবচেয়ে কঠিন দিন ছিল বলে মন্তব্য করেছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু।

তিনি বলেন, বর্তমান যুদ্ধ শুরুর পর গতকাল ছিল সবচেয়ে কঠিন দিন। এই দিনে আমাদের অনেক বীরকে প্রাণ দিতে হয়েছে। আমরা তাদের রক্তের প্রতিশোধ নেব। তাই হামাস ধ্বংস না হওয়া পর্যন্ত আমরা লড়াই চালিয়ে যাব।

মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি) কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এ তথ্য জানিয়েছে।

এদিকে, গাজায় চার মাসব্যাপী যুদ্ধে হামাস নেতারা ইসরায়েলের দৃষ্টির আড়ালে রয়েছেন। সোমবার (২৩ জানুয়ারি) আমেরিকাভিত্তিক টিভি চ্যানেল সিএনএন এ তথ্য জানিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, গাজায় চার মাস ধরে যুদ্ধ চলছে। তবুও ইসরাইল হামাসের সিনিয়র নেতাদের ধরতে ব্যর্থ হয়েছে। তবে চলতি মাসে বৈরুতে ইসরায়েলি হামলায় হামাসের এক শীর্ষ কমান্ডার নিহত হয়েছেন। তিনি ব্যতিক্রম।

ইসরায়েল অনুমান করে যে হামাসের যুদ্ধ শক্তির অন্তত 70 শতাংশ এখনও অক্ষত রয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, হামাসের সিনিয়র নেতারা গাজা ত্যাগ করলে ইসরাইল দীর্ঘমেয়াদি যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব দিয়েছে। ইসরায়েলি যুদ্ধবিরতি নিয়ে কাজ করা দুই কর্মকর্তা সিএনএনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তবে হামাস এ ধরনের প্রস্তাব গ্রহণ করার সম্ভাবনা খুবই কম।

মার্কিন ও আন্তর্জাতিক কর্মকর্তারা বলেছেন যে ইসরাইল ও হামাস উভয়েই আলোচনায় আগ্রহী। কিন্তু তাদের মধ্যে কোনো ঐকমত্য দেখা যাচ্ছে না।

Leave A Reply